৮ ডিসেম্বর চাঁদপুর মুক্ত দিবস

রফিকুল ইসলাম বাবু। ৮ ডিসেম্বর চাঁদপুর মুক্ত দিবস। ১৯৭১ সালের এ দিনে চাঁদপুর পাক হানাদার বাহিনীর বলয় থেকে মুক্তি পেয়েছিল। চাঁদপুর থানার সম্মুখে বিএলএফ বাহিনীর প্রধান মরহুম রবিউল আউয়াল কিরণ প্রথম চাঁদপুরে স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলন করেছিলেন। স্বাধীনতার ৪৩ বছর পেরিয়ে গেলেও ১৯৯১ সাল পর্যন্ত চাঁদপুর মুক্ত দিবস পালনের কোন উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়নি। ১৯৯২ সাল হতে আনুষ্ঠাানিক ভাবে মাস ব্যাপী বিজয় মেলা শুরুর মাধ্যমে ৮ ডিসেম্বর পালন শুরু হয় চাঁদপুর মুক্ত দিবস। চাঁদপুর জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে জেলার বীর মুক্তিযুদ্ধাদের নামের তালিকাসহ জেলা প্রশাসকের কার্যালয় সম্মুখে স্থাপন করা হয়েছে স্মৃতি স্তম্ভ। এভাবেই চাঁদপুরের হাজীগঞ্জ নাছিরকোর্ট এলাকায় বিভিন্ন স্থানে নিহত শহীদদের সমাহিত করে রাজারগাঁও নাছিরকোর্ট এলাকায়। সেখানেও ১১জন শহীদের কবরসহ স্মৃতিস্তম্ভ রয়েছে। এছাড়াও বিভিন্ন স্থানে বর্বরতম হত্যাকান্ড, লুটপাট, ভাংচুর অগ্নিকান্ড চালায় পাকহানাদার বাহিনীরা। মোলহেড এলাকায় চাঁদপুর পৌরসভা ও জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে তৈরি হয় রক্তধারা। তৈরি হয় চাঁদপুরের প্রথম শহীদ মুক্তিযোদ্ধা কালাম, খালেক সুশীল, ও শংকর স্মৃতিস্তম্ভ এবং তৈরি করা হয় স্মৃতিস্তম্ভ অঙ্গীকার।