হলুদ সাংবাদিকতা এবং ……………. আল-আমিন মজুমদার

সাংবাদিকতার নিতীমালা ভূলন্ঠিত করার নাম হলুদ সংবাদিকতা। যে লেখনি মানুষ, দেশ ও জাতীর কল্যাণ বয়ে আনে, যে লেখনী মানুষকে সতত, সত্য ও সুন্দরের ন্যায় সোচ্ছার করে। যে লেখনি মানুষকে মন্দ ও অশ্লীলতায় বিমুখ করে। সে লেখনি মানুষকে সাবধান ও সংযত করবে, যে লেখনি সমাজে সকল অত্যাচার, অনাচার এসব ব্যাধি থেকে কলুষমুক্ত করবে। মানুষ ভূলের উর্দ্ধে নয়। যে লেখনি মানুষকে ভূল ধরিয়ে দেয়, যে লেখনি তথ্য বহুল প্রযুক্তির সন্ধানদেয় যা পরিচয় করিয়ে দেয় অত্যাধুনিকতা যা জীবন যাত্রার মান উন্নত থেকে উন্নততর করে, করবে। দেশ ও জাতীকে স্বর্ণশিখরে আরহনের পথ দেখায়। সঠিক সময়ে সঠিক তথ্য, সত্য মিথ্যার সংমিশ্রণ নয় প্রকৃত সত্য উদঘাটন ও প্রকাশ এমন পবিত্র দায়ীত্ব সাংবাদিকতা। সত্য এবং মিথ্যা একসাথে চলে না সত্য এবং মিথ্যা দু’টি প্রভেদকারী। ইসলামে কঠিন নির্দেশ রয়েছে তোমরা সত্য ও মিথ্যার সংমিশ্রণ করোনা। পকৃত সত্যকে গোপন করোনা। সত্য এসেছে মিথ্যাকে ধ্বংস করার জন্য। সত্যকে সত্যপ্রকাশ করা পূন্য কিন্তু সত্য মিথ্যার সংমিশ্রণ ও সত্যকে গোপন জগণ্যতম পাপ। এ পবিত্র দায়ীত্ব গ্রহণের সময় আত্মসংকল্পবদ্ধ হতে হবে নিজেকে মিথ্যা, অত্যাচার, অনাচার, হিনমন্যতা ও সকল প্রকার দুর্নীতির উর্দ্ধে রাখতে। মিডিয়া প্রচন্ড শক্তিশালি আর এ শক্তি অন্যায়ের প্রতিবাদের জন্য। এ শক্তি দূর্নীতিকে রুখতে। এ শক্তি ব্যক্তি, সমাজ, রাষ্ট, বিশ্বকে আলোকিত করতে। এ শক্তি ব্যক্তির আত্ম প্রয়োজনে, প্রভাবপত্তি বিস্তারে, অন্যায়ের পক্ষে ব্যবহার করে আত্মসিদ্ধি অর্জনে নিজ শক্তির অপব্যবহার করে হুমকি, চাঁদাবাজি, সুবিদা লুট, অবৈধ অর্থ উপার্জনের জন্য নয়। এই নীতিবিবর্জিত কার্য নির্বাহী হলুদ নামধারী সাংবাদিকরা সত্যকে গোপন করে মিথ্যাকে ফুটিয়ে তোলে নিজ স্বার্থে। সত্য মিথ্যার সংমিশ্রণ করে নিজ ফায়দা লুটার জন্য। ন্যায় অন্যায় বিচার করে কে তাকে ফায়দা দিয়েছে, কলম চলবে সে পক্ষে। এমনকি ভবিষ্যৎ ফয়দাও চিন্তা করা হয় কলম চালাতে। ব্যক্তির স্বার্থ নীতি, দলিয় রাজনীতি কারো পক্ষাবলম্বন করে দু’পক্ষকে জানতে চায় না একটি পক্ষ নিয়ে নিজেকে বিক্রি দিয়ে নিজের লেখনিকে বিক্রীত করে সংবাদিকতা ও আদর্শ সংবাদিকদের কলঙ্কে অলংকৃতকারী হলুদ সাংবাদিক। অসৎ উদ্দেশ্য নিয়ে পবিত্র দায়ীত্ব বা পেশায় কেন আসা। এ যেন এক দরে মুসল্লিদের জুতা চোর বানানুর ন্যায়। নামাজীর উদ্দেশ্য নামজ কিন্তু জুতাচোরের উদ্দেশ্য তো নামাজ নয়। একজন লেখক, সাংবাদিক কোন ব্যক্তি, গোষ্ঠি, দলের নন তিনি সকলের। সত্যকে চাপা রাখা যায় না। আত্ম স্বার্থে সত্যকে গোপন রেখে মিথ্যাকে মিডিয়ার মাধ্যমে ফুটিয়ে তুলতে চাওয়া ব্যক্তিই নামধারী হলুদ সাংবাদিক। অসহায় হিনমন্য দুর্ভাগ্যদের পূঁজি করে সংবাদ পরিবেশন করা সমিচীন নয়। সাংবাদিক ব্যক্তিগত মানুষিকতা কিংবা স্বার্থের কারণে তথ্য প্রযুক্তির ন্যায্য অদিকার থেকে জনগনকে বঞ্চিত করতে পারেনা। জনস্বার্থ সম্পর্কিত, ছাপার যোগ্য এবং সংবাদ মূল্য রয়েছে এমন সংবাদ প্রকাশে অবিচল থাকতে হবে, অনুচিত হবে তথ্য গোপন করা। জনগনের জানার অধিকার রয়েছে এমন তথ্য জানানো গনমাধ্যমের অন্যতম দায়বদ্ধকতার অংশ। একজন আদর্শ সাংবাদিক সমাজে সকল দূর্নীতি প্রবনতার বিরুদ্ধে সোচ্ছার থাকা তথা দূর্নিতি মুক্ত সমাজ বির্নিমানে গঠন মূলক কর্তব্যবোদের পরিচয় রেখে ক্ষুরধার লেখনির মাধ্যমে গড়ে তুলতে হবে জনমত। সত্যকে কোনদিন গোপন করা প্রকৃত সাংবাদিকদের কাজ নয়। সাংবাদিকতা পেশা অভিজ্ঞতার প্রয়োজন। আসুন আমরা সঠিক ভাবে সাংবাদিকতা বুঝে, ব্যক্তিস্বার্থ দ্বিধা দ্বন্ধ প্রতিহিংসা ভূলে মূলধারার সাংবাদিক কমিউনিটির সাথে সংযুক্ত হয়ে একাত্বতা পোষন করে মিডিয়ার মাধ্যমে দেশের সত্য নিষ্ঠ্য সংবাদ প্রকাশ করি। মিডিয়া ও সকল সাংবাকি জাতির দর্পণ আরো যথার্থ হোক।