শাহরাস্তির দৈকামতা গ্রামে সম্পত্তিগত বিরোধের জের পৈত্রিক বাড়ির দেয়াল ভেঙ্গে মধ্যযুগীয় ববরতাকে হার মানিয়েছে

শাহরাস্তি ব্যুরোঃ শাহ্রাস্তির দৈকামতা গ্রামে সম্পত্তিগত বিরোধের জের ধরে পৈত্রিক বাড়ির দেয়াল ভেঙ্গে মধ্যযুগীয় ববরতাকে হার মানিয়েছে। ঘটনার বিবরণে জানা যায়, গত ২৬ এপ্রিল বৃহস্পতিবার ১১টায় শাহ্রাস্তির উপজেলার সূচীপাড়া উত্তর ইউনিয়নে দৈকামতা গ্রামের জয়নাল হাজী বাড়িতে সবুজ ও শাহজাহান গং পূর্ব পরিকল্পিত ভাবে মৃত নূর মিয়ার পুত্র প্রবাসী মোহাম্মদ আলীর ৫ বছর পূর্বে পৈত্রিক ভিটিতে তৈরি করা দেয়াল সবুজ ও শাহজাহানের নেতৃত্বে সন্ত্রাসী সঙ্গবদ্ধ দল ভেঙ্গে মাটিতে মিশিয়ে দিয়েছে। এসময় মোহাম্মদ আলীর স্ত্রী ফাতেমা বেগম (৩৫) বাধা দিতে আসলে তার হাতে থাকা চেমচাং জি-৫ মোবাইল সেটটি মোঃ সবুজ (২৩) জোরপূর্বক ছিনাইয়া নিয়া ভেঙ্গে ফেলে এবং মনির হোসেন নামীয় একটি ব্যক্তি সন্ত্রাসী কায়দায় ফাতেমা বেগমকে কিলঘুষি মেরে তার গলায় থাকা দেড় ভরি ওজনের স্বর্ণের চেইন ছিনিয়ে নেয়। এ সময় ফাতেমা বেগমের ডাক চিকৎকারে পাশ্ববর্তী লোকজন এসে তাকে উদ্ধার করে। একই সময়ে চিহ্নিত দশ জনের একটি দল হেমার ও হাতুড়ির মাধ্যমে ৩৫/৪০ ফুট দীর্ঘ পূর্বপাশ্বের দেয়াল ভেঙ্গে ফেলে এবং উত্তর পার্শ্বের দেয়ালটি পৃথক পৃথক ২টি স্থানে ভেঙ্গে ফেলে। এ ব্যাপারে মোহাম্মদ আলীর স্ত্রী ফাতেমা বেগম শাহ্রাস্তি থানায় উপস্থিত হয়ে দশ জনের বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ দায়ের করে। তারা হলো- ১। সবুজ (২৩), পিতা- মনির হোসেন, ২। মনির হোসেন (৫০), পিতা- মৃত আতর মিয়া, ৩। আলা উদ্দিন (২৮), পিতা- মৃত খলিলুর রহমান, ৪। মামুন (৩২), পিতা- মৃত খলিলুর রহমান, ৫। এছাহাক (৫০), পিতা- মৃত খলিলুর রহমান, ৬। জাকির হোসেন (৪০), পিতা- মৃত আতর মিয়া, ৭। সিরাজুল ইসলাম (৫০), পিতা- মৃত ছেরাজুল হক, ৮। শাহজাহান (৬০), পিতা- মৃত খলিলুর রহমান, ৯। রেদওয়ান (৫৮), পিতা- মৃত ছেরাজুল হক, ১০। আবদুল মালেক (৫২), পিতা- মৃত আতর মিয়া, সর্বসাং- দৈকামতা। এ ব্যাপারে স্থানীয় ইউপি মেম্বার মোঃ আবু তাহের জানান, উক্ত ১০ জন অতিশয় দুষ্ট দুর্দান্ত প্রকৃতরি লোক। আইন কানুনের প্রতি তাদের কোন শ্রদ্ধাভক্তি নেই। যখন যা ইচ্ছা তখন তারা তাহাই করে এলাকার অনেক এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়েছে। ফাতেমা বেগম থানায় অভিযোগ করিয়াছে শুনিয়া সবুজ ও শাহজাহান গং তাকে বিভিন্ন ভাবে ভয়ভীতি ও প্রাণ নাশের হুমকি দেয়। এতে করে ফাতেমা বেগম নিরাপত্তা হিনতায় ভোগছে। তিনি সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের সু-দৃষ্টি কামনা করছেন।