বীর মুক্তিযোদ্ধা রুহুল আমিনের ইন্তেকাল বিভিন্ন মহলের শোক

হাসানুজ্জামান,

শাহরাস্তি উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ রুহুল আমিন তালুকদার (৭৩) ইন্তেকাল করেছেন। ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্নাইলাইহি রাজিউন। জানা যায়, তিনি চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত ১০ জানুয়ারী শুক্রবাির দিবাগত রাত ১ টা ৪৫ মিনিটে ঢাকায় সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন। দীর্ঘদিন যাবত বার্ধক্যজনিত কারনে নানান রোগে ভুগছিলেন। মৃত্য কালে স্ত্রী, ৪ ছেলে, ৪ মেয়ে ও নাতি-নাতনীসহ অসংখ্য শুভাকাংখি রেখে যান। ১১ জানুয়ারী শনিবার বেলা দুইটায় স্থানিয় ঢ়াড়া মাদ্রাসা প্রাঙ্গণে রাষ্ট্রীয় মর্যাদা শেষে মরহুমের নামাজে জানাজা অনুষ্টিত হবে। উক্ত জানাজায় উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, পৌর সংসদ, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ,স্থানিয় ইউপি চেয়ারম্যান ও এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ডিপুটি কমান্ডার শাহজাহান পাটোয়ারী বলেন, কমান্ডার রুহুল আমিনের মৃত্যুতে একজন সহযোদ্ধা হারিয়েছি। যিনি সব সময় মুক্তিযোদ্ধাদের সুবিধা-অসুবিধা নিয়ে কাজ করতেন, কথা বলতেন। অল্প কথা বলা মানুষটি তাঁর আচরন দিয়ে সবার মন জয় করতে সক্ষম হয়েছেন। আল্লাহ্ তাঁর স্ত্রী ও সন্তানদের এই শোক সহ্য করার ক্ষমতা দান করুক। পৌর কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা অহিদুর রহমান তাঁর শোক বর্ণনায় বলেন, বীর মুক্তিযোদ্ধা রুহুল আমিন উপজেলা কমান্ডার থাকা কালিন সময়ে অত্যন্ত দক্ষতা ও যোগ্যতার পরিচয় দিয়েছেন। তিনি অত্যন্ত স্বল্পভাষী ও নম্র সভাবজাত মানুষ ছিলেন। তাঁর এই মৃত্যুতে রেখে যাওয়া পরিজনকে যেন আল্লাহ্ হেফাযত করেন এবং মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন তিনি। “আমরা মুক্তিযোদ্ধার সন্তান” এর পক্ষ থেকে মোঃ কামরুজ্জামান ভূঁইয়া বলেন, তিনি শুধু মুক্তিযোদ্ধাই না তাদের সন্তানদেরও ভালোবাসতেন। সব সময় উচিত পরামর্শ দিতেন। আমরা আজ একজন অভিভাবককে হারিয়েছি। আল্লাহ্ যেন বাংলার এই সূর্য সন্তানকে জান্নাত দান করেন।