বীর মুক্তিযোদ্ধা ও বিশিষ্ট নাট্যাভিনেতা মোহাম্মদ আলীর ৩৫ তম মৃত্যু বার্ষিকী অনুষ্ঠিত

বীর মুক্তিযোদ্ধা ও বিশিষ্ট নাট্যাভিনেতা মোহাম্মদ আলীর ৩৫ তম মৃত্যু বার্ষিকী অনুষ্ঠানে মাহবুবুর রহমান
তিনি স্বাধীনতা যুদ্ধে অংশগ্রহণ করে একটি স্বাধীন দেশ দিয়ে গেছেন

বিশেষ প্রতিনিধি ॥
চাঁদপুরের বীর মুক্তিযোদ্ধা ও বিশিষ্ট নাট্যাভিনেতা মরহুম মোহাম্মদ আলীর রুহের মাগফেরাত কামনা করে মিলাদ মাহ্ফিল ও দোয়া অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার বাদ আছর শহরের বিভিন্ন মস্জিদে মোহাম্মদ আলী স্মৃতি সংসদের পক্ষ থেকে এ মিলাদ ও দোয়ার আয়োজন করা হয়। এতে অসংখ্য ধর্মপ্রাণ মুসলমান, মরহুমের পরিবারের লোকজন, আত্মীয় স্বজন, শুভাকাঙ্খি, মোহাম্মদ আলী স্মৃতি সংসদের সকল সদস্যবৃন্দ, এলাকার গণ্যমাণ্য ব্যক্তিবর্গ ও সুধীজন উপস্থিত ছিলেন।
জাতীয় শ্রমীকলীগের চাঁদপুর জেলা শাখার ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ও রেলওয়ে শ্রমীকলীগের সভাপতি মোঃ মাহবুবুর রহমান বলেন, বীর মুক্তিযোদ্ধা মরহুম মোহাম্মদ আলী স্বাধীনতা যুদ্ধে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ডাকে সাড়া দিয়ে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করায় একটি স্বাধীন সার্বভৌমত্ত বাংলাদেশ পেয়েছি। যার ফলে আমরা সবাই আজ স্বাধীন ভাবে এদেশে বসবাস করতে পারছি। কিন্তু তিনি আজ আমাদের মাঝে নেই। তিনি স্বাধীনতা যুদ্ধে অংশগ্রহণ করে একটি স্বাধীন দেশ দিয়ে গেছেন। মুক্তিযোদ্ধারা জাতীর শ্রেষ্ঠ সন্তান। মুক্তিযুদ্ধ এ দেশে বারবার হবে না। যারা মুক্তিযুদ্ধ করে লাল সবুজ পতাকার স্বাধীন বাংলাদেশ উপহার দিয়েছে তারা সত্যিকার অর্থে ভাগ্যবান ছিলো। তাদের স্বশ্রদ্ধভাবে জাতী ও দেশ স্বরণ করে আসছে। মরহুম মোহাম্মদ আলীর রূহের মাগফিরাত কামনা করে তার ছোট ভাই আলোকিত বাংলাদেশ পত্রিকার সাংবাদিক শওকত আলী আজ এ আয়োজন করেছে।
মিলাদ ও দোয়ায় মরহুম মোহাম্মদ আলী, তার ভাই মরহুম হযরত আলী, পিতা মোহাম্মদ জুলফিকার আলী, মাতা বেগম সৈয়দেন্নেছাসহ সকল মৃত আত্মীয় স্বজন ও পৃথিবীর সকল মৃত মুসলমানের রুহের মাগফেরাত কামনা করে দোয়া করা হয়।
অনুষ্ঠানে বাইতুল আমিন জামে মস্জিদের পেশ ইমাম মাওলানা তোয়হা সাহেব দোয়া করতে গিয়ে বলেন মরহুম মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আলী এদেশের জন্য যুদ্ধ করে অনেক অবদান রেখে গেছেন। আজ তিনি নেই, আমরা খোদার দরবারে তার রূহের মাগফিরাত কমনা করি এবং তাকে আল্লাহ যেন জান্নাতবাসী করেন তার জন্য দোয়া চেয়ে মুনাজাত করেন।
বাইতুল আমিন জামে মস্জিদের মিলাদ ও দোয়া মুনাজাত পরিচালনা করেন মাওলানা তোয়হা, রেলওয়ে জিলানীয়া জামে মস্জিদে মিলাদ ও দোয়ায় মুনাজাত পরিচালনা করেন খতিব হাফেজ মাওলানা ওবায়েদুল্লাহ, চৌধুরী জামে মস্জিদের দোয়ার অনুষ্ঠানে মুনাজাত পরিচালনা করেন ইমাম হযরত মাওলানা হোসাইন আহাম্মেদসহ শহরের বিভিন্ন মস্জিদের ইমাম, পেশ ইমামগণ ও ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আলীর রুহের মাগফেরাত কামনা করে তার জন্য দোয়া করেন। এছাড়া তার পরিবারের সদস্য ও আত্মীয় স্বজনসহ সকলের মঙ্গল কামনা ও আশুরোগ মুক্তি কামনা করে খোদার দরবারে বিশেষ প্রার্থনা করেন। পরে সকলের মাঝে তবারুক বিতরণ করা হয়।
অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, চাঁদপুর মেডিকেলের পরিচালক মোঃ হুমায়ুন কবির খান, জেলা যুবদল নেতা শাহজালাল মিশন, রেলওয়ের কর্মকর্তা জাহান শরীফ, বিশিষ্ট বস্ত্র ব্যবসায়ী মোক্তার আহমেদ প্রমুখ।