ফরিদগঞ্জে সম্পত্তিগত বিরোধে মিথ্যা মামলা দিয়ে নিরহ পরিবারকে হয়রানি ॥ সংর্ঘষে আহত-১

ফরিদগঞ্জ প্রতিনিধি
ফরিদগঞ্জে প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে একটি নিরহ পরিবারকে সম্পত্তিগত বিষয় নিয়ে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করার গুরুতর অভিযোগ পাওয়া গেছে। পৌরসভার পশ্চিম বড়ালী গ্রামের ৫নং ওয়ার্ডের ভাওর বাড়ি সংলগ্ন মো. রুহুল আমিন গং পাশ^বর্তী বাড়ির মো. রুস্তুম আলী শেখ গং এর বিরুদ্ধে একটি সম্পত্তির মালিকানা নিয়ে পর পর দুটি মামলা দায়ের করে। বিজ্ঞ আদালত দুটি মামলায় রুস্তুম আলী শেখ গং এর পক্ষে রায় দিয়ে বাদীর মামলা খারিজ করে দেয়। কিন্তু এখনও মামলাবাজ রুহুল আমিন গং বিভিন্ন জনকে দিয়ে একই সম্পত্তির মালিকানা দাবী করে প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে যাচ্ছেন। এ নিয়ে যে কোন মুহুর্তে রক্তক্ষয়ী ঘটনা সহ প্রানহানীর আশংকা করছে এলাকাবাসী।
মামলার বিবরণ ও সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, গত (১৩ অক্টোবর) সকালে নিজ মালিকানাধীন সম্পত্তিতে নির্মানাধীন স্থাপনার কাজ করছিলো নির্মান শ্রমিকরা। এসময় মো. রুহুল আমিন, উজ্জল হোসেন, সোহাগ ও আলমীগর উক্ত নির্মান কাজে বাঁধা প্রদান করে। এক পর্যায়ে তারা সন্ত্রাসী কায়দায় দেশীয় অস্ত্র দিয়ে রুস্তুম আলী শেখের ছেলে মো. রাশেদ শেখ লিটনের উপর অর্তকিত হামলা করে। হামলায় আহত রাশেদ শেখ লিটন চাঁদপুর সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। এঘটনায় রুস্তুম আলী শেখ ফরিদগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। পুলিশ মামলার প্রধান আসামী উজ্জল হোসেনকে আটক করে জেলা হাজতে পাঠিয়েছে।
এসর্ম্পকে রুস্তুম আলী শেখ এ প্রতিনিধিকে বলেন, মামলাবাজ হিসেবে পরিচিত রুহুল আমিন গং বিভিন্ন জনকে দিয়ে আমাদের ভোগ দখলীয় সম্পত্তির উপর মিথ্যা মামলা দায়ের করিয়ে হয়রানি করে আসছে। ইতোমধ্যে তার দায়ের করা একাধীক মামলার রায় আমদের পক্ষে এসেছে। এছাড়া বিভিন্ন সময় তারা আমাদের কাছে মোটা অংকের চাঁদা দাবী করে আসছে।
অপরএক প্রশ্নের জাবাবে তিনি বলেন, আদলত আমাদের পক্ষে রায় দেওয়াতে আমরা উক্ত সম্পত্তিতে স্থাপনা নির্মান কাজ শুরু করি। কিন্তু আবারো রুহুল আমিন গংরা আদালতে মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে সম্পত্তিটি বিরোধপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করে। যার ফলে আদালত আবারো এতে ১৪৫ ধারায় স্থিতি অবস্থা জারি করে। রুহুল আমিনের দায়ের করা মামলায় আমি অর্থনৈতকভাব ব্যাপক ক্ষতির সম্মুখিন হয়েছি। আমি সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের কাছে তদন্তপূর্বক সুষ্ঠু বিচার দাবী করছি।
এবিষয়ে পাশ^বর্তী জমির মালিক মালিক ইয়াছিন মিয়াজী এ প্রতিনিধিকে বলেন, রুহুল আমিনের মিথ্যা মামলায় হয়রানির স্বীকার হয়ে আমার নিজ মালিকানাধীন সম্পত্তি বিক্রি করে দিতে বাধ্য হয়েছি। সে আমার সম্পত্তির উপর ৮/১০ টি মামলা দায়ের করেছিলো।
এসর্ম্পকে রুহুল আমিনের বক্তব্য নেওয়ার জন্য একাধীকবার চেষ্টা করেও তার বক্তব্য পাওয়া যায়নি।