ফরিদগঞ্জে বিএনপির মিছিল পন্ড করে দিয়েছে পুলিশ ॥ আটক ২ জন

                                                                      বিএনপি প্রার্থীর সংবাদ সম্মেলন ॥ ওসির অপসারণ দাবী
শিমুল হাসান, ফরিদগঞ্জ (চাঁদপুর):

ফরিদগঞ্জে বিএনপি মনোনীত প্রার্থীর মিছিল পুলিশ লাঠিচার্জ করে পন্ড করে দিয়েছে। এ সময় দু’ পক্ষের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও ইটপাটকেল নিক্ষেপের ঘটনা ঘটেছে। এতে পুলিশের চার সদস্যসহ দু’ পক্ষের অন্তত ১৫ জন আহত হয়েছে। আহতরা প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছে। আরিফ পাটওয়ারীসহ বিএনপির কয়েক জনকে আটক করা হয়েছে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত আহত ও আটককৃত সকলের নাম জানা যায়নি। গতকাল সোমবার বিকাল ৫টায় এ ঘটনা ঘটেছে ফরিদগঞ্জ বাজারে। ঘটনার সময় বাজারে আতংক ছড়িয়ে পড়ে। ব্যবসায়ীগণ দোকানপাট বন্ধ করে দেয়। এ ব্যপারে পাল্টাপাল্টি অভিযোগ পাওয়া গেছে। সন্ধ্যার পর এ ঘটনার নিন্দা, বিচার ও ওসির অপসারণ দাবী পূর্বক সংবাদ সম্মেলন করেছেন এমএ হান্নান।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছে, বিএনপি প্রার্থী এম এ হান্নানের নেতৃত্বে স্থানীয় বাস স্ট্যান্ড থেকে একটি মিছিলটি বের হয়ে ফরিদগঞ্জ বাজার প্রদক্ষিণ করছিলো। এ সময় মধ্য বাজারে আগে থেকে দাঁড়িয়ে থাকা পুলিশ মিছিল কারীদের উদ্দেশ্যে হাত উঠায়। কিন্তু, মিছিলটি এগিয়ে যাওয়ার পথে পুলিশ অতর্কিতে মিছিলের ওপর লাঠিচার্জ করে ও বেধড়ক পেটায়। মূহুর্তে মিছিলটি ছত্রভঙ্গ হয়ে যায় ও মিছিলে আগত নেতা কর্মী সমর্থকরা দৌড়ে চলে যায়।
এক পর্যায়ে কিছু সংক্ষক নেতা কর্মী সমর্থক মিলিত হয়ে ঘুরে দাঁড়ালে দু’ পক্ষের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও ইটপাটকেল নিক্ষেপের ঘটনা ঘটে।
এ ব্যপারে প্রার্থী এম এ হান্নান সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, আমাদের শান্তিপূর্ণ মিছিলে পুলিশ বিনা উস্কানীতে লাঠি চার্জ করেছে। আমি সামনইে ছিলাম। কিন্তু, কি কারণে পুলিশ এ লাঠিচার্জ করলো ও পিটিয়ে আহত করলো বুঝতে পারলাম না। তিনি অভিযোগ করে বলেন, আওয়ামী লীগের প্রার্থী সফিকুর রহমান আমার দু’ ঘন্টা পূর্বে মিছিল করে গেছে। তাদের বাধা দেওয়া হয়নি। অথচ, আমাদের সঙ্গে বিমাতা সুলভ আচরণ করলো। পুলিশ পরিকল্পিতভারে হামলা চালিয়েছে বলে অভিযোগ করে তিনি এ ব্যপারে সিইসি কর্তৃক ব্যবস্থা গ্রহণের দাবী জানিয়েছেন। তিনি এ ঘটনার নিন্দা, বিচার ও ওসির অপসারণ দাবী পূর্বক সংবাদ সম্মেলন করেছেন
আহত পুলিশ সদস্যরা হলেন এস আই ওমর ফারুক, এস আই আবুল কালাম আজাদ, এ এস আই রসুল ও সুমন্ত। বিএনপির আহতদের নাম জানা যায়নি। এ ব্যপারে জানতে চাইলে এম এ হান্নান বলেছেন, আমাদের অনেকে আহত হয়েছেন। তাদের নাম পরে জানা যাবে।
ঘটনার পর দলীয় নেতা কর্মীসহ এম এ হান্নান অভিযোগ দায়ের করতে থানায় যান। সেখানে ওসির সঙ্গে কথা বলে বের হয়ে যান। তবে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, প্রস্তুতি নিয়ে পরে মামলা দায়ের করা হবে।
এদিকে, ফরিদগঞ্জ থানা পুলিশের ওসি হারুনুর রশিদ জানান, বাজার ব্যবসায়ী ও জনগণের নিরাপত্তার স্বার্থে আমরা রাস্তায় দায়িত্বরত পালন করছিলাম। এম এ হান্নানের নেতৃত্বে আগত একটি মিছিল থেকে আমাদের পুলিশ বাহিনীর ওপর ইটপাটকেল নিক্ষেপ করা হয়েছে। তখন জননিরাপত্তার স্বার্থে আমরা আমাদের দায়িত্ব পালন করেছি। তিনি চারজন পুলিশ সদস্য আহত হবার কথা জানান। সূত্রে জানা গেছে, এ ব্যপারে মামলা দায়ের হতে পারে।