নতুন বাজারে সংখ্যালঘুর দোকানপাট ভাংচুর ও হামলার ঘটনায় থানায় মামলা

IMG_1683
শাহরিয়ার খান কৌশিক ॥

চাঁদপুর শহরের নতুন বাজার বিদ্যুৎ অফিসের সামনে সন্ত্রাসী বাহিনী দেশীয় অস্ত্র শস্ত্র নিয়ে সংখ্যালঘু পরিবারের দোকান ভাংচুর ও লুটপাটের ঘটনায় আসামীদের বিরুদ্ধে চাঁদপুর মডেল থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। আজ শনিবারে আহত হরিপদসাহা বাদী হয়ে ৩ জনের নাম উল্লেখ ও ১৫/২০জনকে অজ্ঞাত আসামী করে মামলা দায়ের করে। মামলা নং- ৫৫, তারিখ- ২৮/০২/২০১৫। পুলিশ সূত্রে জানা যায়, গত শুক্রবার দিনে দুপুরে সম্পত্তি দখলের জন্য অতর্কিতভাবে হামলা চালিয়ে দোকানের ভিতরে থাকা মালামাল বাইরে ফেলে দিয়ে ৩জনকে আহত করে। এ ঘটনায় কোড়ালিয়া পাটওয়ারী বাড়ির বর্তমানে মাদ্রাসা রোড মুন্সি বাড়ি সংলগ্ন এলাকার বাসিন্দা মৃত ওছমান আলী পাটওয়ারীর ছেলে আবুল হোসেন পাটওয়ারী ও তার দু’ ছেলে কামরুল. রাসেলসহ অজ্ঞাত ১৫/২০কে আসামী করে মামলা দায়ের করা হয়েছে। সংখ্যা লঘু পরিবারের উপর হামলার ঘটনায় যাদের আসামী করা হয়েছে তাদেরকে অচিরেই গ্রেফতার করা হবে বলে পুলিশ সূত্রে জানা যায়।
ওদিকে হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. রনজিত রায় চৌধুরী, সিনিয়র নেতা তপন সরকার, সুশীল সাহা, অজিত সাহা, নির্মল রায়, গৌতম রায় চৌধুরী, বিবেক মজুমদার, বাসুদেব মজুমদার জানায়, সংখ্যা লঘু পরিবারের উপর এভাবে হামলা চালিয়ে দোকান ভাংচুর ও লুটপাট করার পর হামলাকারীরা পুনরায় ভয়ভীতি প্রদর্শন করছে। তাদের বিরুদ্ধে যে মামলা হয়েছে, সেই মামলায়, দ্রুত বিচার আইনের ধারা সংযুক্ত না করায় জনমনে মিশ্র প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে। হামলাকারীরা ক্ষিপ্ত হয়ে পুনরায় জনমনে আতঙ্ক সৃষ্টি করে পুরো ঘটনাটি ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা চালাচ্ছে। দিনে দুপুরে সংখ্যা লঘুদের উপর এভাবে হামলার ঘটনাটি কোনভাবেই চাঁদপুরবাসী মেনে নিতে পারছেনা। অচিরেই মামলাটি দ্রুত বিচার আইনে রূপান্তরিত করে, মামলার এজাহারভুক্ত আসামীদের গ্রেফতার করে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করে প্রশাসনের সু-দৃষ্টি কামনা করছি।
উল্লেখ্য, গত শুক্রবার দুপুর আড়াইটায় হীরা স্বর্ণ শিল্পালয়ের মালিক আবুল হোসেন পাটওয়ারীর ও তার ছেলে কামরুল পাটওয়ারী নেতৃত্বে একদল ভাড়াটে সন্ত্রাসী সংখ্যালঘুদের সম্পত্তি দখল করতে এসে এ হামলার ঘটনা ঘটায়। খবর পেয়ে মডেল থানার এসআই নুরুল হক সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে হামলাকারীদের ধাওয়া করে। হামলাকারীরা সাহা এন্ড ব্রাদার্সের সত্ত্বাধিকারী হরিপদ সাহা, স্বপন কুমার সাহা, রুহিপদ সাহার সম্পত্তি ও দোকান জোরপূর্বক দখল করার জন্য অতর্কিতভাবে দিনে দুপুরে হামলা চালিয়ে দোকান থেকে মালামাল রাস্তায় ফেলে দেয়। তারা দোকানের মূল্যবান মালামাল ও টাকা পর্যসা লুটপাট করে পালিয়ে যায়।