ছারছীনা দরবার শরীফের  মাহফিল 

আগামী ১১,১২ও ১৩ মার্চ
 ১৩ মার্চ মঙ্গলবার বাদ জোহর আখেরী মুনাজাত 
মুহা : আবু বকর বিন ফারুক।।
শতাব্দীর ঐতিহ্যধন্য ইসলামী শিক্ষার প্রাণকেন্দ্র, সুন্নতে নববীর উপর প্রতিষ্ঠিত ছারছীনা দরবার শরীফের কুত্ববুল আলম আল্লামা শাহ্ সূফী মাওলানা নেছারুদ্দীন আহমদ (রহ.)  এবং মুজাদ্দিদে জামান শাহ্ সূফী মাওলানা আবু জাফর মোহাম্মদ ছালেহ (রহ.) এর  ঈছালে ছওয়াব, ছারছীনা মাদ্রাসার বার্ষিক মাহফিল ও বাংলাদেশ জমইয়তে হিযবুল্লাহ সম্মেলন আগামী১১, ১২ও ১৩ মার্চ, রবি,সোম ও মঙ্গলবার।  ছারছীনা দরবার শরীফের বিশাল ময়দানে শুরু হবে।
কোরআন তেরাওয়াত, জিকির – আজকার ও হযরত পীর ছাহেব কেবলার সংক্ষিপ্ত নসীহত ও দোয়া মোনাজাতের মাধ্যমে মাহফিলের উদ্বোধন করা হবে।
মাহফিলের তিনদিন কোরআন ও হাদীসের আলোকে গুরুত্বপূর্ণ ওয়াজ করবেন- দরবারের ওলামা, খোলাফা, ছারছীনা আলিয়া ও দ্বীনিয়া মাদ্রাসার সুযোগ্য আসাতেজায় কেরামগণ।
প্রত্যহ বাদ মাগরীব ও বাদ ফজর লাখো লাখো ভক্ত-মুরীদানের উদ্দেশ্যে মূল্যবান নসীহত ও ইলমে মা’রেফতের তা’লীম এবং মঙ্গলবার  বাদ জোহর দেশ, জাতি ও মুসলিম উম্মাহর সার্বিক কল্যাণ কামনা করে আখেরী মোনাজাত পরিচালনা করবেন ছারছীনা দরবার  শরীফের পীর ছাহেব আলহাজ্ব হযরত মাওলানা শাহ্ মোহাম্মদ মোহেব্বুল্লাহ (মা.জি.আ.)।
উল্লেখ্য এদেশে ইসলাম ব্যাপক প্রচার ও প্রসারে ছারছীনা দরবারের ভূ’মিকা ও অবদান অবিস্মরণীয়। ছারছীনা দরবার ও বাংলাদেশ জমইয়তে হিযবুল্লাহ, বাংলাদেশ যুব হিযবুল্লাহ ও বাংলাদেশ ছাত্র হিযবুল্লাহ একটি ত্বরীকা ভিত্তিক অরাজনৈতিক দ্বীনি সংগঠন হলেও রাষ্ট্রীয় পর্যায়ে ইসলাম প্রতিষ্ঠায় এ দরবার অনন্য ভূমিকা পালন করেছে এবং এখনও করছে।
ছারছীনা দরবারের প্রতিটি কার্যক্রমই কোরআন-সুন্নাহ মোতাবেক পরিচালিত হচ্ছে। এ দরবারে শেরেক বেদআতের কোন স্থান নেই। বরং শেরেক ও বেদআত নির্মুলের জন্যই এদরবার প্রতিষ্ঠিত হয়েছে।
ইতোমধ্যেই মাহফিলের  প্রস্তুতি চলছে।