চাঁদপুর হরিনা বাজারে খোলা টয়লেটের দুর্গন্ধে অতিষ্ঠ এলাকাবাসী

শাহরিয়ার খান কৌশিক

চাঁদপুর সদর উপজেলার ১৩ নং হানারচর ইউনিয়নের হরিনা বাজারে খোলা টয়লেটের দুর্গন্ধে বাজারের ব্যবসায়ী ও এলাকাবাসী অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে।
দীর্ঘদিন যাবৎ এই খোলা টয়লেটের ময়লা পাশে পুকুর ও খালের পানিতে নিশ্চিত হয়ে পরিবেশ ব্যাপক দূষণ হচ্ছে।
টয়লেটের দুর্গন্ধে আশেপাশের বাড়ির মানুষদের বসবাসের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। কারণ দুর্গন্ধের কারণে শিশু-কিশোর ও মহিলাদের বিভিন্ন রোগ দেখা দিয়েছে অনেকে চাঁদপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে।
এই দুর্ভোগ থেকে স্থানীয়রা মুক্তি চায় বলে জানিয়েছেন এলাকাবাসী।
দীর্ঘ ৭০ বছর পূর্বে হরিনা বাজার সংলগ্ন এলাকায় একটি খোলা টয়লেট নির্মাণ করা হয়েছে। পরবর্তীতে টয়লেটের পাশে একটি টাংকি করলেও কিছুদিন যেতে না যেতেই বর্ষার পানির তোপে সেটি ভেঙ্গে যায়। টয়লেটের ময়লা পানির সাথে মিশ্রিত হয়ে পরিবেশ দূষণ হতে থাকে। গেল কয়েক বছর পূর্বে ওই পুরনো টয়লেটের পাশে আরেকটি নতুন টয়লেট তৈরি করেন সদর উপজেলা পরিষদ। নতুন টয়লেট তৈরি করলেও পিছনের টাংকি না করায় এখন পর্যন্ত টয়লেটটি ব্যবহারের উপযোগী হয়নি।
এই কারণে হরিনা বাজারের ব্যবসায়ী ও স্থানীয় লোকজন বাধ্য হয়েই খোলা টয়লেট ব্যবহার করছে।
চাঁদপুরে কোথাও খোলা টয়লেট দেখা না গেলেও হরিনা বাজারে আসলেই এটি চোখে পড়ে ও রাস্তা দিয়ে মানুষ আসার পথে নাক মুখে কাপড় দিয়ে বন্ধ করে আসতে হয়।
এই দুর্ভোগ থেকে পরিত্রান চাই সাধারণ মানুষ ও স্থানীয় ব্যবসায়ীরা।
স্থানীয় সাবেক মেম্বার হাসান ছৈয়াল জানায়, এই খোলা টয়লেটের টাংকি না থাকায় ময়লা পানিতে মিশ্রিত হয়ে দুর্গন্ধ সৃষ্টি হয়েছে। অতি জরুরী সরকার এখানে নজর দিয়ে একটি ময়লার টাংকি তৈরি করলে এই দুর্ভোগ থেকে স্থানীয় এলাকাবাসী রক্ষা পাবে।
বাজার কমিটির সভাপতি সাবেক চেয়ারম্যান মোতালেব জানায়, পুরনো টয়লেটের পাশে সদর উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান একটি নতুন টয়লেট করেছে। বরাদ্দ না থাকায় কারণে টয়লেটের টাংকি করা হয়নি। এই কারণেই ময়লা পানিতে পড়ে এলাকা দূষণ হচ্ছে। অতি জরুরী এখানে একটি ময়লার টাংকি করা প্রয়োজন। এজন্য সংশ্লিষ্ট দপ্তরের সহযোগিতা কামনা করছি।