চাঁদপুর শাহরাস্তিতে দেয়াল কেটে মাদক ব্যবসায়ী সিষ্টেম খোকনকে উদ্ধার

রফিকুল ইসলাম বাবু ঃ

চাঁদপুর জেলার শাহরাস্তি উপজেলার কুখ্যাত মাদক ব্যবসায়ী ও মাদক সংক্রান্ত নয় মামলার আসামি সিষ্টেম খোকনকে তিন ঘন্টার শ্বাসরুদ্ধকর অভিযান চালিয়ে পুলিশ গ্রেফতার করেছে। বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে একটি ভবনের দু’টি দেয়াল কেটে দমকলবাহিনীর সদস্যরা তাকে উদ্ধার করার পর পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে। তাৎক্ষণিক তাকে শাহরাস্তি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স্রে পাঠিয়ে চিকিৎসা করা হয়। শুক্রবার বিকেলে তাকে চাঁদপুরের আদালতে পাঠালে আদালত তার জামিন না মঞ্জুর করে জেল হাজতে পাঠিয়ে দেয়। পুলিশের দাবি, আটকে পড়া ব্যক্তির নাম খোকন ওরফে সিস্টেম খোকন (৫২)। সে একজন মাদক ব্যবসায়ী। বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে উপজেলার উত্তর ঠাকুরবাজারে পুলিশ মাদকবিরোধী অভিযান চালায়। এ সময় শাহরাস্তি পৌরসভার পূর্ব উপলতা কাজী বাড়ির খোকন ওরফে সিস্টেম খোকন পুলিশের ধাওয়া খেয়ে দৌড়ে পালাতে গিয়ে ঠাকুরবাজারের যশোরীর দুই ভবনের মাঝখানে সরু জায়গায় আটকে যায়। সেখান থেকে পুলিশ তাঁকে উদ্ধারে ব্যর্থ হয়ে ফায়ার সার্ভিস দলকে খবর দেয়। পরে শাহরাস্তি ও হাজীগঞ্জ ফায়ার সার্ভিসের দুটি ইউনিট তাঁকে উদ্ধারের চেষ্টা চালায়। হাজীগঞ্জ ফায়ার সার্ভিস কর্মকর্তা মোতালেব জমাদার জানান, একপর্যায়ে অতিরিক্ত গরমে খোকন দুর্বল হয়ে পড়লে তাঁকে বাঁচানোর জন্য ফায়ার সার্ভিস দল একটি ভবনের দেয়াল ছিদ্র করে খাওয়ার পানি দেয় এবং চার্জার ফ্যানের মাধ্যমে বাতাস দেওয়ার ব্যবস্থা করে। পরে প্রায় আড়াই ঘণ্টা চেষ্টা চালিয়ে দেয়াল কেটে গতকাল দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে তাঁকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। স্থানীয় লোকজন জানান, খোকন মৃত আবদুল হকের ছেলে। সে দীর্ঘদিন ধরে ইয়াবা বিক্রি করে আসছেন। উদ্ধার তৎপরতার সময় চাঁদপুরের সহকারী পুলিশ সুপার মো. শেখ রাসেল, শাহরাস্তি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহ আলমসহ পুলিশের অন্য কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। জ্যেষ্ঠ সহকারী পুলিশ সুপার মো. শেখ রাসেল বলেন, খোকনকে ধরতে পুলিশ অভিযান চালালে পালাতে গিয়ে সে দুই ভবনের সরু ফাঁকে আটকে যায়। রাতে প্রায় আড়াই ঘণ্টার চেষ্টায় ফায়ার সার্ভিসের দুটি ইউনিট যৌথভাবে চেষ্টা চালিয়ে তাঁকে উদ্ধার করে। শাহরাস্তি থানার ওসি শাহ আলম বলেন, খোকনের বিরুদ্ধে শাহরাস্তি থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে ৯টি মামলা রয়েছে। সে থানার তালিকাভুক্ত দুই নম্বর আসামি।