চাঁদপুর ফরিদগঞ্জ দক্ষিন রূপসায় গৃহবধুকে কুপিয়ে হত্যা

রফিকুল ইসলাম বাবু ॥ চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জে জাহেদা আক্তার মিশু (২০) নামের এক গৃহবধূকে কুপিয়ে হত্যা করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। সোমবার উপজেলার রূপসা দক্ষিন ইউনিয়নের চরমগুয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার পর থেকে ঘাতক সুজন খাঁন পলাতক রয়েছেন। নিহত জাহেদা আক্তার মিশুর স্বজন ও থানা-পুলিশ সূত্রে জানা যায়, নিহত জাহেদা আক্তার মিশু চরমগুয়া এলাকার সেকান্তর মেম্বারের বাড়ীর মৃত সেলিম বেপারীর মেয়ে। ২ বছর আগে সন্তোষপুর গ্রামের প্রবাসী সোহেলের সাথে মিশুর বিয়ে হয়। বিয়ের পর স্বামী প্রবাসে থাকায় জাহেদা আক্তার মিশু বাবার বাড়ীতে থাকতো। বাবার বাড়ীতে থাকা অবস্থায় পাশের বাড়ীর আবুল বাশারের ছেলে বখাটে সুজন খাঁন (২৮) শিশুকে কুপ্রস্তাব দিলে মিশু রাজী না হওয়ায় একপর্যায়ে সুজন খাঁন ধারালো দেশীয় অস্ত্র দিয়ে মিশুকে উপর্যপূরি কুপিয়ে গুরুতর জখম করে। এ সময় মিশুর কান্নাকাটি ও চিৎকারের শব্দ শুনে প্রতিবেশীরা ছুটে আসলে রক্তাক্ত অবস্থায় ঘরের পড়ে থাকতে দেখে। সঙ্গে সঙ্গে মিশুকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হলে চিকিৎসক তাকে ঢাকায় রেপার করে। চাঁদপুর সদর হাসপাতালে নেওয়ার পথে শিশুর মৃত্যু হয়। খবর পেয়ে পুলিশ এসে লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়। নিহত মিশুর চাচা আহসান উল্যাহ বলেন, বখাটে সুজন বেশির ভাগ সময়ই নেশাগ্রস্ত থাকতেন। শেষ পর্যন্ত সুজন আমার ভাতিজীকে মেরেই ফেলল। আমরা এ ঘটনার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই। এ বিষয়ে ফরিদগঞ্জ থানার ওসি তদন্ত অহিদুর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, খবর পেয়ে নিহতের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। এ ঘটনায় ঘাতক সুজনের ছোট ভাই তৌফিক খাঁনকে জিজ্ঞেসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে।