চাঁদপুর পৌরসভার ইতিহাসে এই প্রথম ফুটপাত ও রাস্তা প্রশস্ত করা হচ্ছে ভাঙ্গা পড়ছে অনেক ভবনের অংশ

চাঁদপুর শহরের বৃহৎ জনগোষ্ঠীর স্বার্থে যুগান্তকারী কাজ শুরু করেছেন চাঁদপুর পৌরসভার মেয়র আলহাজ্ব নাছির উদ্দিন আহমেদ। যে কাজটি চাঁদপুর পৌরসভার ইতিহাসে এই প্রথম হচ্ছে। জনকল্যাণে শুরু করা কাজটি হচ্ছে-চাঁদপুর শহরের সড়কগুলোর দু’পাশে ফুটপাত নির্মাণ করা এবং রাস্তা প্রশস্ত করা। দীর্ঘ বছর যাবৎ এ কাজটি করার দাবি চাঁদপুর শহরবাসীর থাকলেও কোনো পৌর চেয়ারম্যানই এ কাজটিতে হাত দেননি। কারণ কাজটি খুবই দুঃসাহসিক। তা হচ্ছে_অনেক প্রভাবশালীর বাসা-বাড়ির অংশ, দোকানপাটসহ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের অংশ তাদের নিজেদের ব্যক্তি মালিকানাধীন জায়গা ছেড়ে এসে পৌরসভার সড়কের অংশে পড়ে গেছে। তাই সড়ক প্রশস্ত এবং দু’পাশে ফুটপাত করতে হলে ওইসব ভবনের অংশ ভাঙ্গা পড়বে। আর ভাংতে গেলেই অনেক তদবিরসহ বাধার মুখে পড়তে হবে। এসব ঝামেলা এড়ানোর জন্যই কোনো চেয়ারম্যানই এ কাজে হাত দেননি। এমনকি বর্তমান মেয়র নাছির উদ্দিন আহমেদের সময়ও অনেকবার এ দাবি ওঠে। কিন্তু তাঁর সদিচ্ছা থাকা সত্ত্বেও এতোদিন তিনি নানা কারণে এ কাজে হাত দিতে পারেননি। অবশেষে তিনি এ কাজটি শুরু করেছেন। এ জন্যে চাঁদপুরবাসী মেয়র নাছির উদ্দিন আহমেদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন।

গত মাস থেকে শুরু হয় চাঁদপুর শহরে রাস্তা প্রশস্তকরণ ও রাস্তার দু’পাশে ফুটপাত তৈরির কাজ। কাজটি শুরু হয় পৌর ভবনের সামনের সড়ক কুমিল্লা রোড দিয়েই। চৌধুরী জামে মসজিদের পর থেকে পূর্বমুখী সড়কের দক্ষিণ পাশে প্রথমে ড্রেনসহ ফুটপাত তৈরির কাজ শুরু হয়। এ অংশে ড্রেনসহ ফুটপাত তৈরির কাজ একটানা কালীবাড়ি মন্দির পর্যন্ত চলে আসে। এরপর ধরা হয় সড়কের উত্তর পাশ। এখানেও ওয়ান মিনিটের রাস্তার মাথা থেকে রাস্তার পাশে ড্রেন এবং ফুটপাত নির্মাণ কাজ শুরু হয়। ক্রমান্বয়ে এটি এখন পশ্চিম দিকে আসছে। আর এই ড্রেন এবং ফুটপাত তৈরি করতে গিয়ে দেখা যাচ্ছে যে, রাস্তার দু’পাশের সব দোকানপাট ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের সামনের অংশ ভাঙ্গা পড়ছে। কারণ এসব অংশ পৌরসভার রাস্তার অংশে পড়ে গেছে। সরজমিনে দেখা গেছে যে, দু’ পাশে ফুটপাতসহ প্রায় ৫/৬ ফুট রাস্তা প্রশস্ত করা হয়েছে।

গতকাল বৃহস্পতিবার দেখা গেলো, রজনীগন্ধা শপিং কমপ্লেঙ্রে পাশে বেশ ক’টি দোকানের মূল ভবনের পিলার ভাঙ্গা হচ্ছে। এতে বুঝা যাচ্ছে যে, পৌরসভার রাস্তা দখল করে দোকানের অংশ গড়ে তোলা হয়েছে। শুধু দোকানই নয়, রাস্তা প্রশস্ত করতে গিয়ে দেখা গেছে যে, বাসাবাড়ির বাউন্ডারী দেয়াল, গেইট এমনকি মূলভবনের পিলারও ভাঙ্গা হচ্ছে। যে চিত্রটি ক’দিন আগে দেখা গেলো চাঁদপুর শহরের পালপাড়া এলাকায়। এ দৃশ্য দেখে বুঝার আর অবকাশ নেই যে, মানুষ বাসা-বাড়ি নির্মাণ করতে গিয়েও নিজের মালিকানাধীন জায়গা ছাড়িয়ে এসে সরকারি রাস্তার উপর চলে এসেছে।

গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে যখন চাঁদপুর পৌর ভবনের পূর্বপাশে মার্কেট ও দোকানপাটের অংশ ভাঙ্গা হচ্ছিলো, তখন এ কাজে নিয়োজিত পৌরসভার একজন স্টাফের সাথে কথা বলে জানা গেলো, মেয়র মহোদয় পুরো শহরেই এ কাজটি অর্থাৎ রাস্তা প্রশস্তকরণ এবং ফুটপাত তৈরির কাজটি করবেন। কোনো বাধা বা তদবিরে এবার তিনি এ কাজ থেকে পিছপা হবেন না। এর আগে কাগজপত্র অনুযায়ী মাঝঝোখ দিয়ে রাস্তার অংশ চিহ্নিত করা হয়েছে। মেয়র নাছির উদ্দিন আহমেদ দৃঢ় মনোবল নিয়ে জনস্বার্থে এমন কঠিন কাজটি শুরু করায় চাঁদপুরবাসী তাঁর প্রতি কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জানান।

এ বিষয়ে মেয়র নাছির উদ্দিন আহমেদ বলেন, চাঁদপুর শহরবাসীর স্বার্থেই এ কাজটি করা হচ্ছে। প্রথমে প্রধান সড়ক প্রশস্ত করা হবে। পরে পাড়া-মহল্লার ভেতরের অলিগলিও প্রশস্ত করা হবে। এ কাজে তিনি চাঁদপুর পৌরবাসীর সহযোগিতা চেয়েছেন।