চাঁদপুরে পানিতে পড়ে ২ বছরের শিশুর করুণ মৃত্যু

চাঁদপুরে পানিতে পড়ে আব্দুল্লাহ নামে দুই বছরের শিশুর করুণ মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে।
  মঙ্গলবার দুপুরে ১০ নং লক্ষিপুর মডেল ইউনিয়নের পূর্ব রঘুনাথপুর ১ নং ওয়ার্ড, ওয়ালার সিআইপি খালে পড়ে  শিশুর করুণ মৃত্যু হয়েছে।
  খালে ভাসছে দেখে স্থানীয়রা শিশুকে উদ্ধার করে জানানোর পর চাঁদপুর সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়।
হাসপাতালের কর্তব্যরত ডাক্তার শিশুটিকে মৃত ঘোষণা করে।
  পরে শিশুটির পরিবার তাকে নানীর বাড়িতে নিয়ে আসে।
  শিশু দাদা ইউসুফ খান থানায় মৌখিক অভিযোগ করলে  মডেল থানার এসআই মফিজুল সঙ্গীয় ফোর্স মেয়ে শিশুর নানীর বাড়িতে গিয়ে স্থানীয় লোকজনদের কাছে পানিতে পড়ে মৃত্যুর ঘটনাটি নিশ্চিত হন।
  দীর্ঘদিন যাবত শিশুর মা ইয়াসমিন ও বাবা সুজন খানের সাথে মামলা চলমান রয়েছে।
 সেই ঘটনাটি পুঁজি করে শিশুর বাবা ও তার দাদা ইউসুফ খান পানিতে পড়ে মৃত্যুর ঘটনাটি হত্যা কান্ড বলে আখ্যায়িত করে থানায় মৌখিক অভিযোগ করেন।
 পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তদন্ত করে পানিতে পড়ে মারা যাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত হন।
  শিশুটিকে ময়না তদন্ত করার জন্য পুলিশ থানায় নিয়ে আসে।
  শিশুর খালা মাছুমা বেগম ও নানির রানী বেগম জানায়, দুপুরে হঠাৎ করে শিশু খালের পাড়ে ঘাটলায় গেলে পানিতে পড়ে যায়।
স্থানীয়রা পথচারীরা ভাসতে দেখে তাকে উদ্ধার করে খবর দেয়। পরে হাসপাতালে নেওয়ার পর ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করে।
  পানিতে পড়ে শিশুর মৃত্যুর ঘটনাটিকে পুঁজি করে তার বাবা ও দাদা নিজেরা পূর্বের মামলা থেকে রেহাই পেতে একটি ষড়যন্ত্র করতে থাকে।
  শিশুর বাবা সুজন খান স্ত্রী ও সন্তানের কোনো খোঁজখবর না নেওয়ায় তার বিরুদ্ধে আদালতে মামলা করা হয়েছে।
মৃত্যুর ঘটনাটি তাদেরকে ফোনে জানানোর পর তারা পুলিশকে ভুল তথ্য দিয়ে মিথ্যা অভিযোগ করে ফাঁসানোর চেষ্টা চালায়। পানিতে পড়ে শিশুর মৃত্যুর ঘটনাটি নিয়ে তারা রাজনীতি করতে থাকে।
  এ বিষয়ে এসআই মফিজুল জানায়,
পানিতে পড়ে শিশুর মৃত্যু হয়েছে তার এলাকার সবাই সাক্ষ্য দিয়েছে। তবে শিশুর দাদা যেহেতু অভিযোগ করেছেন তাই শিশুটিকে ময়না তদন্ত করা প্রয়োজন। তাহলে পরবর্তীতে কেউ কোনো মামলা ও হয়রানি করতে পারবে না।