চাঁদপুরে কষ্টি পাথরের মূর্তি উদ্ধারের গুজব, এলাকা উত্তাল

শাহরিয়ার খান কৌশিক,

চাঁদপুর মতলব দক্ষিণ উপজেলা কষ্টি পাথরের মূর্তি উদ্ধারের খবর পাওয়া গেছে। কষ্টি পাথরের মূর্তি উদ্ধারের পর পুলশি সিেট আত্মসাৎ করার গুজব ছড়েিয় পেেড়ছ।
মতলব দক্ষিণ উপজেলার নারায়ণপুর ইউনিয়নের নাদিন খান দিঘীর পাড় থেকে একটি মূর্তি উদ্ধার করে ১৩ বছরের শিশু জাবেদ সরকার।
বহু বছরের পুরনো মূর্তি উদ্ধারের পর রাতের আধারে মতলব দক্ষিণ থানার পুলিশ কাউকে না জানিয়ে মূর্তিটি উদ্ধারকারী শিশুর কাছ থেকে ছিনিয়ে নেওয়ার ঘটনায় এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে।
মূর্তিটি উদ্ধারের পর মতলব থানা পুলিশ সেটি আত্মসাৎ করেছে বলে এলাকার মানুষ অভিযোগ করেছেন।
কিন্তু মতলব দক্ষিণ থানার এসআই জহির সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে ঘটনার দিন রাতে শিশু জাবেদ সরকারের বািেড়ত গিয়ে মূর্তিটি উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে।
পরে থানায় জিডি মূলে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি জানিয়ে আদালতে মূর্তিটি পাঠানোর প্রক্রিয়া করছে বলে পুলিশের এই কর্মকর্তা জানিেেয়ছন।
উদ্ধারকৃত মূর্তিটি প্রকৃতপক্ষে কষ্টি পাথরের মূর্তি নয় এটি মোগল সম্রাট আমলে হিন্দু সম্প্রদায়রে মন্দিরে পুজো করার জন্য ধূপকাঠি লাগানোর শত বছরের পুরনো একটি মূর্তির মতো পাত্র বলে দাবি করেছেন পুলিশের এসআই জহির।
নারায়ণপুর ইউনিয়নের ৩ নং ওয়ার্ড মেম্বার রফিক মুন্সি জানায়, নাদিম খান দিঘির পাড় বাধানোর জন্য একটি ভেকু মেশিন দিয়ে কাজ করানো হয়। এ সময় দিঘি থেকে মাটি উঠানোর পর সেখানে এলাকার কয়কেজন শিশু খেলা করছিল।
গত দুই সপ্তাহ পূর্বে ওই শিশুরা একটি মূর্তি উদ্ধার করে তাদের বািেড়ত নিয়ে যায়। পুলিশ খবর পেয়ে রাতেই চেয়ারম্যান ও মেম্বারকে অবহিত না করে শিশুর কাছ থেকে মূর্তি উদ্ধার করে নিয়ে যায়। পরে এ সম্পর্কে পুলিশ আর কিছুই না জানানোর কারণে এলাকায় গুঞ্জন ছড়েিয় পেেড়ছ।
মূর্তিটি উদ্ধারকারী শিশু জাবেদ সরকার জানায়, দিঘির পাড়ে খেলতে গিয়ে খাদের ভিতরে এই মূর্তিটি পাওয়া যায়। পরে সেটি বািেড়ত নিয়ে গেলে রাতে পুলিশ এসে ভয়-ভীতি দেখিয়ে নিয়ে যায়।
এলাকার স্থানীয় লোকজন জানায়,নাদিম খাঁর দিঘীর পাড় থেকে একটি মূর্তি উদ্ধার করার পর পুলিশ সেটি নিয়ে যাওয়ার ঘটনায় এলাকায় ব্যাপক আলোচনা ও সমালোচনার ঝড় বইছে।
প্রকৃতপক্ষে এটি কি কষ্টি পাথরের মূর্তি কিনা তা বলা সম্ভব হয়নি তবে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করলে এটি আসল না নকল তা বলা সম্ভব হবে।