চাঁদপুরের কৃতি সন্তান আইজিপি জাবেদ পাটোয়ারীর দায়িত্ব গ্রহণ

পুলিশ মহাপরিদর্শক (আইজিপি) হিসেবে দায়িত্ব নিয়েছেন ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী। বুধবার বিকেলে পুলিশ সদর দপ্তরে বিদায়ী আইজিপি এ কে এম শহীদুল হক দায়িত্ব হস্তান্তর করেন তাঁর কাছে।

এর আগে দুপুরে পুলিশ সদর দপ্তরের পক্ষ থেকে বিদায় সংবর্ধনা দেওয়া হয় তাকে। একই অনুষ্ঠানে নতুন আইজিপিকে বরণ করে নেওয়া হয় ফুল ও ক্রেস্ট প্রদানের মাধ্যমে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবনে নবনিযুক্ত আইজিপিকে র‌্যাংক ব্যাজ পরিয়ে দেন সন্ধ্যায়।

নতুন আইজিপির উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী বলেন, সন্ত্রাস-মাদক, জঙ্গিবাদ নির্মূল হবে, সেটাই আমরা চাইছি। দেশে শান্তিপূর্ণ পরিবেশ থাকুক, উন্নয়নের ধারা যেন অব্যাহত থাকে, সেটাই আমরা চাই।

এ সময় বিভিন্ন ঘটনায় আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী সংস্থাগুলোর বলিষ্ঠ ভূমিকার প্রশংসা করেন প্রধানমন্ত্রী। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল এতে উপস্থিত ছিলেন।

পুলিশ সদর দফতর আয়োজিত দায়িত্ব গ্রহণ অনুষ্ঠানে নবনিযুক্ত আইজিপি ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী বলেন, ‘পুলিশের যে পরিবর্তন এসেছে, এটা ইতিবাচক। অনেক কল্যাণমুখী কাজ করেছেন বিদায়ী আইজিপি। পুলিশকে এগিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করেছেন বিভিন্নভাবে। অবসরে গেলেও পুলিশের জন্য তার সহযোগিতার হাত উন্মুক্ত থাকবে বলে আমি প্রত্যাশা করি।’

পুলিশ বাহিনীর প্রধান হিসেবে দায়িত্ব দেওয়ায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন তিনি। জাবেদ পাটোয়ারী বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর ২০২১ ও ২০৪১ সালের ভিশন বাস্তবায়নে পুলিশের বর্তমান কার্যক্রম অব্যাহত রাখতে হবে।’

পুলিশকে নির্বাচনের বছরে ধৈর্য ধরে দায়িত্ব পালনের পরামর্শ দেন বিদায়ী আইজিপি। তিনি বলেন, ‘এটা নির্বাচনের বছর। অনেক নাটক হতে পারে। অনেক ষড়যন্ত্র হতে পারে। সবকিছু মোকাবেলা করে নির্বাচনী পরিবেশ শান্তিপূর্ণ রাখতে হবে, যাতে মানুষ নির্বিঘ্নে ভোটকেন্দ্রে গিয়ে ভোট প্রয়োগ করতে পারে।’

শহীদুল হক বলেন, ‘আইজিপি হিসেবে আমার দায়িত্বকালে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তির বিরুদ্ধে অনেক ষড়যন্ত্র হয়েছিল। দেশে যেন কোনো অগণতান্ত্রিক সরকার আসতে না পারে, সেই লক্ষ্যেও তিন বছর এক মাস কাজ করেছি।’ ৩২ বছর চাকরিতে পূর্ণ সন্তুষ্টি নিয়ে তিনি বিদায় নিচ্ছেন বলে মন্তব্য করেন। নবনিযুক্ত আইজিপিকে অভিবাদন জানিয়ে তিনি বলেন, ‘তার নেতৃত্বে পুলিশ এগিয়ে যাবে।’

দুপুরে পুলিশ সদর দপ্তরে বিদায়ী আইজিপির বিদায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন অতিরিক্ত আইজিপি মো. মোখলেসুর রহমান।

বিদায়ী আইজিপি, নবনিযুক্ত আইজিপি ও অতিরিক্ত আইজিপি মোখলেসুর রহমান ছাড়াও এতে বক্তব্য দেন র‌্যাবের মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ, ঢাকা মহানগর পুলিশের কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া, চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি এসএম মনিরুজ্জামান, চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশের কমিশনার ইকবাল বাহার, পুলিশ সদর দপ্তরের অতিরিক্ত ডিআইজি ড. শোয়েব রিয়াজ আলম, টাঙ্গাইল পিটিসির অতিরিক্ত ডিআইজি সালেহ মোহাম্মদ তানভির, মুন্সীগঞ্জ জেলার এসপি জাহেদুল আলম, গাজীপুর জেলার এসপি হারুন অর রশীদ প্রমুখ।

প্রসঙ্গত, ড, জাবেদ পাটোারী সাবেক আইজিপি শহিদুল হকের মতোই বিসিএস ৮৪ ব্যাচের। ওই ব্যাচে প্রথম হয়েছিলেন তিনি। ২০২০ সালের এপ্রিল পর্যন্ত চাকরির মেয়াদ আছে জাবেদপাটওয়ারীর।

চাঁদপুর সদর উপজেলার শাহমাহমুদপুর ইউনিয়নে জাবেদ পাটোয়ারীরর জন্ম। বাবুরহাট হাই স্কুল থেকে কৃতিত্বের সাথে পাস করেন এসএসসি। উচ্চ মাধ্যমিক শ্রেণীতে গিয়ে ভর্তি হন চাঁদপুর কলেজে। সেখান থেকে এইচএসসি পাসের পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সমাজবিজ্ঞান অনুষদে ভর্তি হন। বিশ্ববিদ্যালয়ের সর্বোচ্চ ডিগ্রি নেওয়ার পরজাবেদ পাটোয়ারী সহকারী পুলিশ সুপার হিসেবে চাকরিতে যোগদান করেন ১৯৮৬ সালে।

২০১৩ সালে সচিব পদমর্যাদায় গ্রেড-১ পদে পদোন্নতি পান পুলিশের বিশেষশাখার (এসবি) প্রধান জাবেদ পাটোয়ারী। পুলিশ প্রশাসনে স্বচ্ছ ইমেজের কর্মকর্তা হিসেবে পরিচিতি রয়েছে তার। জাবেদ পাটোয়ারীর সহধর্মিণী মিসেস হাবিবা হোসেন।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কারা জীবনের ওপর লেখা গ্রন্থ ‘কারাগারের রোজনামচা’-এর বিভিন্ন ‘নথিপত্র’ সংগ্রহে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন জাবেদ পাটোয়ারী।