চাঁদপুরের ওয়ান মিনিট, হেভেন ও আল হেলাল রেষ্টুরেন্টে এর বিরুদ্ধে অভিযোগ ম্যাজিস্ট্রেটদের

                            চাঁদপুরে আল হেলাল রেষ্টুরেন্টে খাবার তৈরিতে ব্যবহৃত হয় পোড়া তেল!
স্টাফ রিপোর্টারঃ চাঁদপুর শহরের আল হেলাল রেষ্টুরেন্টে দীর্ঘদিন যাবৎ খাবার তৈরিতে ব্যবহৃত হচ্ছিলো পোড়া তেল।যা না জেনে এই রেষ্টুরেন্টে তৈরি পোলাও,মাংস ও বিভিন্ন ভাজা পোড়া খেয়ে অনেকেই নিজের স্বাস্থ্যেরহানী ঘটিয়েছেন।সেই সাথে নিজের দেহে বাসা বাধিয়েছেন বিভিন্ন রোগেরও।শুধু তাই নয় এখানের খাবারগুলোও তৈরি হতো অত্যান্ত নিম্নমানের অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে।আর যারা খাবার পরিবেশন করেন তাদের খাবার পরিবেশনও যথেষ্ট অস্বাস্থ্যকর। ২২ মে বুধবার এমন খবরগুলোই উঠে আসে ম্যাজিস্ট্রেটদের ভ্রাম্যমান কোর্ট পরিচালনা শেষে।এ বিষয়ে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সহকারি কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট উজ্জ্বল হোসাইনের সাথে আলাপ হলে তিনি জানান,আল হেলাল রেষ্টুরেন্ট নামক প্রতিষ্ঠানটিতে খুব নোংরা পরিবেশে খাবার তৈরি করা হচ্ছিলো।শুধু তাই নয় এই প্রতিষ্ঠানের এরা রান্নার কাজে ব্যবহার করছিলো পোড়া তেল! তাছাড়াও এরা বাসি ও পঁচা খাবারও দীর্ঘদিন যাবৎ লোক ঠকিয়ে বিক্রি করছিলো।আমরা এসব বিষয়সহ নানা অনিয়ম থাকায় এই আল হেলাল রেষ্টুরেন্ট প্রতিষ্ঠানটিকে ৫ হাজার টাকা জরিমানা করে সতর্ক করেছি।সেই সাথে এই রেষ্টুরেন্ট কর্তৃপক্ষকে তাদের এমন অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ বদলাতে কঠোর নির্দেশনা দিয়েছি।এ ভ্রাম্যমান কোর্ট পরিচালনার সময় জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ মাহবুবুর রহমান ও নির্বাহী মাজিস্ট্রেট আবিদা সিফাত সহ সঙ্গীয় পুলিশ ফোর্সরা উপস্থিত ছিলেন বলেও তিনি জানান।
                                          চাঁদপুরে বাসি ও পঁচা খাবার বিক্রি করে হেভেন!

 চাঁদপুর শহরের সুপরিচিত একটি খাবার প্রতিষ্ঠান হচ্ছে হেভেন।যেখানে লোক আড়ালে দীর্ঘদিন যাবৎ নোংরা পরিবেশে তৈরি করা হচ্ছিলো বিভিন্ন খাবার।শুধু তাই নয় মাংস ও অন্যান্য রান্নায় এখানে ব্যবহার করা হতো পোড়া তেল।যা না জেনেই হেভেনে অনেকে খেয়ে নিজেদের স্বাস্থ্য খারাপ করছিলো। ২২ মে বুধবার এমন খবরগুলোই উঠে আসে ম্যাজিস্ট্রেটদের ভ্রাম্যমান কোর্ট পরিচালনা শেষে।এ বিষয়ে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সহকারি কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট উজ্জ্বল হোসাইনের সাথে আলাপ হলে তিনি জানান,হেভেন নামক প্রতিষ্ঠানটিতে খুব নোংরা পরিবেশে খাবার তৈরি করা হচ্ছিলো।শুধু তাই নয় এই প্রতিষ্ঠানের এরা রান্নার কাজে ব্যবহার করছিলো পোড়া তেল।তাছাড়াও এরা বাসি ও পঁচা খাবারও দীর্ঘদিন যাবৎ লোক ঠকিয়ে বিক্রি করছিলো।আমরা এসব বিষয়সহ নানা অনিয়ম থাকায় ওই হেভেন প্রতিষ্ঠানটি কে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করে সতর্ক করেছি।সেই সাথে হেভেন কর্তৃপক্ষকে তাদের এমন অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ বদলাতে কঠোর নির্দেশনা দিয়েছি।এ ভ্রাম্যমান কোর্ট পরিচালনার সময় জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ মাহবুবুর রহমান ও নির্বাহী মাজিস্ট্রেট আবিদা সিফাত সহ সঙ্গীয় ফোর্সরা উপস্থিত ছিলেন বলেও তিনি জানান।
                                    চাঁদপুরের ওয়ান মিনিট মিষ্টির দোকানে উৎপাদিত হতো অস্বাস্থ্যকর মিষ্টি!
 চাঁদপুরে সাধারন মানুষকে দীর্ঘদিন যাবৎ অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে মিষ্টি উৎপাদন করে গ্রাহক ঠকাচ্ছিলো ওয়ান মিনিট প্রতিষ্ঠানের সম্পদ সাহা।শুধু তাই নয় এসব অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে উৎপাদিত মিষ্টি তিনি দোকানে সংরক্ষণ করে বিক্রি পর্যন্ত করছিলেন।যা নিয়ে বিভিন্ন জন জানলেও এসব বিষয়ে তেমন কেউ কিছু বলতে সাহস করেনি।২২ মে বুধবার এমন খবরে ভ্রাম্যমান কোর্ট পরিচালনা করেন ম্যাজিস্ট্রেটরা।তারা ঘটনার সত্যতা পেয়ে এমন অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে মিষ্টি উৎপাদন ও সংরক্ষণ করার জন্য এই ওয়ান মিনিট কর্তৃপক্ষকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করেন।সেই সাথে এভাবে গ্রাহক ঠকানো বন্ধ করার জন্য কঠোর নির্দেশনা দেন ওই ওয়ান মিনিট প্রতিষ্ঠানের সম্পদ সাহাকে।এ বিষয়ে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের ওই ভ্রাম্যমান কোর্ট পরিচালনাকারী উজ্জ্বল হোসাইনের সাথে আলাপ হলে তিনি জানান,ওয়ান মিনিট প্রতিষ্ঠানটিতে অস্বাস্হ্যকর পরিবেশে দীর্ঘদিন যাবৎ মিষ্টি উৎপাদন করা হচ্ছিলো।যা সম্পূর্ণ নিয়ম বহির্ভূত।পাশাপাশি এই সব অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে উৎপাদিত মিষ্টি তারা সংরক্ষণ করে বিক্রিও করছিলো।যেজন্য ওই ওয়ান মিনিট কর্তৃপক্ষের সম্পদ সাহাকে এসব বিষয়ে সতর্ক করেছি এবং এমন অনিয়মের জন্য জরিমানা করেছি।এসময় ভবিষ্যতে তাকে এ ধরনের অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে উৎপাদিত মিষ্টি বাজারজাত না করার কঠোর নির্দেশনাও দেওয়া হয়েছে।এ ভ্রাম্যমান কোর্ট পরিচালনার সময় জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ মাহবুবুর রহমান ও নির্বাহী মাজিস্ট্রেট আবিদা সিফাত সহ সঙ্গীয় ফোর্সরা উপস্থিত ছিলেন বলেও তিনি জানান।