আমি কাউকে বিপদে ফেলতে চাই না—-জেলা প্রশাসক মোঃ মাজেদুর রহমান খান

অমরেশ দত্ত জয়ঃ
জেলা প্রশাসক মোঃ মাজেদুর রহমান খান বলেছেন,আমি কাউকে বিপদে ফেলতে চাই না।আপনারা আপনাদের কাজগুলো ঠিকমতো করুন।সময়মতো অফিসে এসে যা যা করনীয় সেগুলো করুন।আমি ত নই-ই বরং কেউ যাতে আপনাদের বিপদে ফেলতে না পারে।সে ব্যপারেও খেয়াল রাখবো।গতকাল ২৯ মঙ্গলবার সকালে লেডী প্রতিমা মিত্র বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ও পুরুষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের উদ্যেশ্যে তিনি এসব কথা বলেন।তিনি বলেন,আমি গভীরভাবে স্মরণ করছি জাতির শ্রেষ্ট সন্তান বীর মুক্তিযোদ্ধাদের।যাদের জন্য আমরা পেয়েছি আজকের সুখি সমৃদ্ধ বাংলাদেশ।জাতির পিতার কন্যা শেখ হাসিনা আপমার জনগণের জন্য যে শান্তি প্রিয় বাংলাদেশ বিনির্মাণ করতে চলেছেন।তাদের সাথে আমরাও এক হয়ে আপনাদের সাথে নিয়ে কাজ করতে চাই।তিনি শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্য করে আরো বলেন,কোমলমতি শিক্ষার্থীরা তুমি তোমার মতো হও।পৃথিবীতে একজন মহান ব্যাক্তির জন্ম দেও।নতুন একজন আদর্শ মায়ের মতো করে সিতারা বেগম,তারা মন বিবি’র মতো ভালো দিকগুলো গ্রহন করে এগিয়ে যাও।আর তোমরাই এই দেশকে সুখি সমৃদ্ধ করতে কাজ করে যাবে এই প্রত্যাশা করছি।অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ শফি উদ্দিন আহমেদ বলেন,আজকের এই দিনটির জন্য সারা বছর শিক্ষার্থীরা অপেক্ষা করে।আর এই স্কুলের শিক্ষার্থীদের অনেক সুন্দর অভিভাবন দেখলাম।শিক্ষার্থীরা তোমরা পড়ালেখার পাশাপাশি খেলাধূলাও করবে।তবে সেটা এই স্কুল পর্যায়েই নয়।তোমাদের জাতীয় পর্যায়ে যার যার অবস্থান থেকে চেষ্টার মাধ্যমে যেতে হবে।তিনি আরো বলেন,বর্তমানে মানুষ ভালো মানুষ থেকে দূরে থাকে।তবে আমি যারা বিশৃঙ্খলা করে।যারা মাদকের সাথে থাকে তাদের সাথে চলতে চাই না।লেডী প্রতিমা মিত্র বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি এম এ মাসুদ ভূঁইয়ার সভাপতিত্বে এবং বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোর্শেদা ইয়াছমিনের পরিচালনায় এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন,চাঁদপুর প্রেস ক্লাব সভাপতি শহীদ পাটোয়ারী,সাধারন সম্পাদক লক্ষণ চন্দ্র সূত্রধর,লেডী প্রতিমা মিত্র বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা রোজিনা সুলতানা,আক্তারুননেছা,বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সদস্য মোঃ জাকির হোসেন,মোঃ ফিরোজ আহমেদ খান,পৌর
কাউন্সিলর ফরিদা ইলিয়াছ  প্রমুখ।এর আগে অনুষ্ঠান শুরুতে পবিত্র কোরআন তেলোয়াত করে শিক্ষার্থী মারুফা আক্তার এবং গীতা পাঠ করে শিক্ষার্থী বৈশাখী রানী।পরে অতিথিরা জাতীয় সংগীতের সাথে জাতীয় ও ক্রীড়া পতাকা উত্তোলন করে অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন।এ সময় মাঠে অতিথিদের সামনে বিদ্যালয়ের সিতারা বেগম দল,রেড ক্রিসেন্ট,তারামন বিবি দল,গার্লস গাইডের সদস্যরা চমৎকার কুচকাওয়াজ প্রদর্শন ও অভিবাদন জানায়।পরে দুপুর পর্যন্ত শিক্ষার্থীরা শত শত ক্রীড়ামোদী দর্শকের উপস্থিতিতে বিভিন্ন ইভেন্টে প্রতিযোগিতায় অংশ নেয়।এতে প্রতিযোগিতায় অংশ গ্রহনকারী বিজয়ীরা অতিথিদিদের হাত থেকে পুরুষ্কার গ্রহন করেন।অনুষ্ঠানে প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকবৃন্দ,শিক্ষার্থী ও স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও শিক্ষার্থীদের অভিভাবকগন উপস্থিত ছিলেন