হাজীগঞ্জে নির্দিষ্ট দামে মাংস বিক্রি ও ফুটপাতে পণ্য না রাখতে ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্দেশ

গত বুধবার ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট হাজীগঞ্জে গরুর মাংসের কেজি সাড়ে ৫শ’ টাকা নির্ধারণ করে দিয়েছেন। একই সময় জনগণের জন্যে হাঁটার স্থান ফুটপাতে কোন দোকানি বা দোকানির পণ্য না রাখার জন্যে নির্দেশনা দেয়া হয়। এদিন দুপুরে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জিয়াউল ইসলাম চৌধুরী।

এর পূর্বে রমজান উপলক্ষে গরুর গরুর মাংস ( হাড় ছাড়া) ৫শ’ ৫০ টাকা থেকে বেড়ে ৬শ’ এবং হাড়সহ ৫শ’ থেকে সাড়ে ৫শ’ টাকা বিক্রি করা হচ্ছিল এমন অভিযোগ ছিলো সর্বত্র। এমনকি ওজনে কম দেয়ার অভিযোগ উঠে মাংস ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে। একই আদালত নির্দিষ্ট দামে মাংস বিক্রি ও বিক্রিতে ওজনে কম না দেয়ার প্রতিশ্রুতি আদায় করেন মাংস ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে।

এদিকে ভ্রাম্যমাণ আদালতে মেয়াদোত্তীর্ণ খাদ্যপণ্য (বিস্কুট, চানাচুর) বিক্রি করার অপরাধে ভোক্তা অধিকার আইনে এক ব্যবসায়ীকে ২ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। একই আদালত বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান থেকে দাঁড়ি-পাল্লা, বাটখারা এবং ২০ কেজি কারেন্ট জাল জব্দ করে ধ্বংস করে। একই সময় বাজারের যানজট নিরসনে হকারমুক্ত ফুটপাত ও ফুটপাতে রাখা দোকানের মালামাল সরিয়ে নেয়ার নির্দেশনা প্রদান করে আল্টিমেটাম দেয়া হয়।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জিয়াউল ইসলাম চৌধুরী বলেন, রমজান উপলক্ষে দ্রব্যমূল্যের মান এবং দাম নিয়ন্ত্রণ ও ফুটপাত দখলমুক্ত রাখতে আমাদের এই আদালত পরিচালনা করা হয়।