লম্পট শিক্ষক ইমামকে সর্বোচ্চ শাস্তি প্রদান করা হোক

imam-master.jpg225555

জ্ঞান চর্চা যেদিন থেকে মানুষ শুরু করেছে সেদিন থেকেই গুরু-শিষ্যের সম্পর্কের সূচনা হয়েছে। অতীতকালে ছাত্র-শিক্ষক সম্পর্ক ছিলো পিতা-পুত্রের মতো। তাই অনেকে শিক্ষককে ‘দ্বিতীয় জন্মদাতা’ বলে অভিহিত করেছেন। আধুনিককালে প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার উন্মেষকালেও ছাত্র-শিক্ষকের মধ্যে শ্রদ্ধা ও ¯েœহের সম্পর্ক অব্যাহত ছিলো।
বর্তমান পরিপ্রেক্ষিতে ছাত্র শিক্ষকের অতীতের সুসম্পর্কটি এখন আর খুঁজে পাওয়া যাবে না। শিক্ষা ব্যবস্থার আমূল পরিবর্তনের সাথে সাথে ছাত্র-শিক্ষক সম্পর্কের মধ্যেও পরিবর্তন এসেছে। আধুনিককালে সর্বক্ষেত্রে বাণিজ্যিকীকরণের হাওয়া শিক্ষাক্ষেত্রেও লেগেছে এবং শিক্ষাও একটি সহজলভ্য বাণিজ্যিক উপকরণে পরিণত হয়েছে। প্রাইভেট টিউশনি, কোচিং প্রভৃতিতে তাদের ঝোঁক বেশি। অপরদিকে দেখা যায় শিক্ষকদের মধ্যেও নৈতিকতার মারাত্মক অভাব। যুবসমাজের অবক্ষয়ের সাথে সাথে তাদেরও নীতি-আদর্শ বিসর্জন দিয়ে দিয়েছে। এমনি এক ঘটনা ঘটেছিলো চাঁদপুর হাইমচর চরভাঙ্গা উচ্চ বিদ্যালয়ে। শিক্ষক লম্পট ইমাম হোসেন বিএসসি একই স্কুলের নমবম শ্রেণির শিক্ষার্থীকে স্কুলের দ্বিতীয় তলায় প্রাইভেট পড়াতেন। বিভিন্ন সময় তার রুমে ডেকে নিয়ে ঐ শিক্ষার্থীকে অশ্লীল কথাবার্তা ও অঙ্গভঙ্গি করতেন। গত ১৪ ফেব্রুয়ারিতে স্কুল ছুটির পরে তার রুমে দেখা করতে বললে ছাত্রী শিক্ষকের কথানুযায়ী দেখা করলে জোড়পূর্বক ঐ ছাত্রীকে জড়িতে যৌন কামনার চেষ্টা করে এবং অশ্লীল ছবি তার ল্যাপটপের মাধ্যমে তুলে রাখে। এ ঘটনা জানাজানি হলে এলাকায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়।
গতকাল দৈনিক চাঁদপুর নিউজে ছাত্রীকে যৌন হয়রানির অভিযোগে শিক্ষক ইমাম বিএসসি স্কুল থেকে বহিস্কার শিরোনামে একটি সংবাদ প্রকাশিত হয়। ঘটনার বিবরণে জানাযায়, স্কুল ছাত্রীকে যৌন হয়রানি ও আপত্তিকর ছবি তুলে ইন্টারনেটসহ ফেসবুকে ছড়িয়ে দেয়ার অভিযোগে হাইমচর চরভাঙ্গা উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক লম্পট ইমাম হোসেন বিএসসিকে সাময়িক বহিস্কার করেছে স্কুল কর্তৃপক্ষ। গত ৬ অক্টোবর ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি ও প্রধান শিক্ষক নিশ্চিত করেছেন।
নির্যাতিতা শিক্ষার্থীর বাবার লিখিত অভিযোগে হাইমচর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০০০ (সংশোধন ২০০৩)-এর ১০, অবৈধ যৌন কামনা চরিতার্থ করার উদ্দেশ্যে শরীরের স্পর্শকাতর স্থানে হাত দিয়ে যৌন পীড়ন করার অপরাধে বিএসসি শিক্ষকের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। মামলা নং ২, তারিখ ১/১০/২০১৩। মামলা দায়েরের পর থেকে লম্পট ইমাম বিএসসি পলাতক রয়েছেন।
আমরা আশাকরি, সংশ্লিষ্ট প্রশাসন এ লম্পট শিক্ষককে আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি প্রদান করতে সচেষ্ট হবে।