সৌদিতে এ পর্যন্ত ১৫ বাংলাদেশি হাজির মৃত্যু

স্টাফ রিপোর্টারঃ-
যারা মারা গেছেন, তারা হলেন- বগুড়া জেলার সোনাতলা উপজেলার মোহাম্মদ কোরবান আলী প্রামাণিক (৮০)। তার পাসপোর্ট নং- AF1323365।
1239985_523091424440598_1072355003_n
তিনি রোববার স্থানীয় সময় ভোর ৫টার দিকে মক্কায় মারা যান। কোরবান আলী সিটি নিওন ট্রাভেলসের মাধ্যমে হজ করতে সৌদি আরব এসেছিলেন।

চাপাইনবাবগঞ্জ জেলার শিবগঞ্জ উপজেলার মোহাম্মদ মকবুল হোসাইন (৭৫)। তার পাসপোর্ট নং-AF7120489। তিনি রোববার সকালে মক্কায় মারা গেছেন। মকবুল হোসেন উত্তরণ ট্রাভেলসের মাধ্যমে হজ পালন করতে বাংলাদেশ বিমানের একটি ফ্লাইটে ১২ সেপ্টেম্বর সৌদি আরব আসেন।

গাইবান্ধা উপজেলার পলাশবাড়ী উপজেলার মোহাম্মদ হামিদুর রহমান মন্ডল (৫৭)। তার পাসপোর্ট নং- AG7008887।

তিনি শনিবার স্থানীয় সময় সন্ধ্যা ৭টার দিকে মক্কায় মারা যান। মাইদুর রহমান এ বছর আইরোড্রুম বাংলাদেশ নামের একটি এজেন্সির মাধ্যমে হজ পালনের উদ্দেশ্যে সৌদি আরব আসেন।

নওগাঁ জেলার রানীনগর উপজেলার মোহাম্মদ মজিবর সরদার (৭০)। তার পাসপোর্ট নং- AE7793518। তিনি শুক্রবার মক্কার নুর হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেন। মজিবর সরদার জান্নাতুল কুলুদ ট্যুরস অ্যান্ড ট্রাভেলসের মাধ্যমে ১২ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশ বিমানের একটি ফ্লাইটে হজ পালনের উদ্দেশ্যে সৌদি আরব আসেন।

কক্সবাজার সদর উপজেলার সাইদুর রহমানের স্ত্রী শাজাহান বেগম (৭০)। তার পাসপোর্ট নং AF0146349। তিনি বুধবার স্থানীয় সময় বিকেল ৫টার দিকে মদিনার আল আন্সার হাসপাতালে মারা যান।

শাজাহান বেগম আল শাফা ইন্টারন্যাশনালের মাধ্যম হজ পালনের উদ্দেশে সৌদিতে আসেন।

রংপুর জেলার জেলায় গঙ্গাচড়া উপজেলার আবুল কালাম আজাদ (৫০)। তার পাসপোর্ট নং- OC1039025। তিনি মঙ্গলবার মক্কার জাহের হাসপাতালে ইন্তেকাল করেন।

আবুল কালাম আজাদ মাবরুর এয়ার ট্রাভেলসের মাধ্যমে পবিত্র হজ পালন করতে সৌদি আরব আসেন।

নারায়ণগঞ্জ জেলার সোনারগাঁও উপজেলার নাজমুন (৯২)। তার পাসপোর্ট নং- AF8353448। নাজমুন বৃহস্পতিবার মক্কার আল হেরা হাসপাতালে মারা যান।

তিনি নেপচুন এয়ার ইন্টা. এর মাধ্যমে হজ পালনের জন্য ১১ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশ বিমানের একটি ফ্লাইটে সৌদি আরব আসেন।

বগুড়ার শিবগঞ্জ উপজেলার শরশের আলী কাজীর ছেলে মোহাম্মদ আফসার আলী কাজী (৬৭)। তার পাসপোর্ট নং AF0601758।

নওগাঁ জেলার রানীনগর উপজেলার ইলিম ফকির (৭১), পাসপোর্ট নং- AF0297483।

সাতক্ষীরা সদর উপজেলার মৃত রহমত উল্লার ছেলে জুলফিকার আলী (৫৭)। পাসপোর্ট নং- W0478362। মোহাম্মদ গোলাম রাব্বানী, পাসপোর্ট নং- AC4484998।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার কসবা উপজেলার মোছাম্মত আফরোজা বেগম। পাসপোর্ট নং- AF6230648।

শেরপুরের শ্রীবর্দী উপজেলার আবু হানিফা। পাসপোর্ট নং- AF2971758।

জয়পুরহাট সদর উপজেলার মোহাম্মদ আব্দুল মোমেন (৭৭)। পাসপোর্ট নং- AF1084349।

গোপালগঞ্জ জেলার কাশিয়ানী উপজেলার রামদীয়া গ্রামের রহিমুদ্দিন শিকদারের ছেলে মোহাম্মদ শওকত হোসাইন (৬৪)। পাসপোর্ট নং- AF2054893।

এ পর্যন্ত মৃতদের প্রত্যেকেই হৃদরোগ ও বার্ধক্যজনিত কারণে মারা যান বলে বাংলানিউজকে জানিয়েছেন মক্কা হজ মিশন সূত্র।

সূত্র আরো জানায়, মৃতদের মক্কা এবং মদিনায় দাফন হয়।