সন্ত্রাসীদের হামলার শিকার সাংবাদিক ফরিদুল আলম রূপন

স্টাফ রিপোর্টার ॥ ফরিদগঞ্জে পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে সন্ত্রাসীদের হামলার শিকার চাঁদপুর সংবাদের ফরিদগঞ্জ উপজেলা প্রতিনিধি সাংবাদিক ফরিদুল আলম রূপন। ২৬ মে বিকাল ৫টায় ফরিদগঞ্জ উপজেলার ১নং বালিথুবা ইউনিয়নের বেহারীপুর ঢালী বাড়ীর রাস্তার মাথায় সন্ত্রাসীদের হামলার শিকার হন সাংবাদিক ফরিদুল আলম রূপন। ঘটনার বিবরণে জানা যায়, ২৬ মে শনিবার সাংবাদিক রূপন ঔ এলাকা দিয়ে যাওয়ার পথে দেখতে পায় একদল সন্ত্রাসীরা মোঃ শহীদ ঢালীর দোকানঘর ভাংচুর ও উচ্ছেদ করার কাজে লিপ্ত ছিল। এসময় সাংবাদিক ফরিদুল আলম রূপন পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে সন্ত্রাসী কর্তৃক দোকানঘর ভাংচুর ও উচ্ছেদের ছবি মোবাইলে ভিডিও করেন। সন্ত্রাসীরা ভিডিও ধারণ করার দৃশ্য দেখে দৌড়ে এসে দলবল ও অস্ত্র নিয়ে সাংবাদিক রূপনের হাতের মোবাইল ভেঙ্গে ফেলে। পরে রূপন সাহসিকতার সাথে ওই দৃশ্য ধারণ করতে গিয়ে উন্নতমানের ডিবিসি মডেলের ক্যামেরা ব্যাগ থেকে বের করলে ওই ক্যামেরাটিও সন্ত্রাসীরা ছিনিয়ে নিয়ে তাদের হাতে থাকা কুড়াল দিয়ে কুপিয়ে ধ্বংস করে দেয়। এসময় সন্ত্রাসীরা সাংবাদিক রূপনের ওপর তাদের হাতে থাকা বিভিন্ন লাঠি ও দেশীয় অস্ত্র দিয়ে ব্যাপকভাবে মারধর করে গুরুতর রক্তাক্ত যখম করে। এসময় তাকে আটকিয়ে তার মানিব্যাগে থাকা ২০ হাজার (মৎস্য ব্যবসার) টাকা এবং পত্রিকার পরিচয়পত্রটিও ছিনিয়ে নিয়ে যায়। সন্ত্রাসীরা হুমকি দিয়ে বলে যদি এ ব্যাপারে থানা পুলিশ করা হয়, তাহলে তোকে জীবন্ত কবর দেয়া হবে। আজ ছেড়ে দিলাম পরে আর ছাড়বো না। এ ব্যাপারে স্থানীয় লোকজন জানায়, মোঃ আরিফ খান (২৮) পিতা, কলমতর খান, স্বপন খান (৪০), পিতা. হাতিম খান, মোঃ নাজির খান (৫৫) পিতা-মৃত. খলিল খান, জামাল খান (২৫), পিতা নাজির খান, মোঃ সজীব খান (২১) পিতা নাজির খান ও আকবর খান (৪০), পিতা-মৃত. আনতা খান এলাকায় সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজী ও মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত। এদের ভয়ে কেহই মুখ খুলে কথা বলে না। এদের অনেকেই মাদক মামলার ফেরারী আসামী। এদের অনেকের বিরুদ্ধে মাদক আইনে মামল হয়েছে বলে এলাকাবাসী জানায়। ঢাকা শেওড়াপাড়া জামতলা এলাকার (বাড়ি নং-১০১৪) কুখ্যাত মাদক ব্যবসায়ী পুলিশের মাদক বিরোধী অভিযানে গাঁ ঢাকা দিতে নাজির খানের পুত্র জামাল খান এখন এলাকায় বিচরণ করছে। বিভিন্ন অপকর্ম করে মানুষের মাঝে আতংক সৃষ্টি করে চলছে বলে এলাকাবাসী নাম প্রকাশ না করার শর্তে আমাদের প্রতিনিধিকে জানান। উক্ত ঘটনার খবর পেয়ে ফরিদগঞ্জ থানা পুলিশের এসআই আনোয়ার হোসেন ঘটনাস্থল পরির্দশন করেছেন এবং ঘটনার সত্যতা খুঁজে পেয়েছেন বলে জানান। আইন শৃংখলা রক্ষা বাহিনীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন এলাকাবাসী। এ ব্যাপারে মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে জানা যায়।