সংবাদপত্র কোন ব্যক্তির মুখপাত্র হতে পারে না ………………………..সুজিত রায় নন্দী

                                      হাইমচরে দৈনিক মতলবের আলো পত্রিকার ১১তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর অনুষ্ঠানে

স্টাফ রিপোর্টার
ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনা ও বর্নাঢ্য আয়োজনের মধ্য দিয়ে হাইমচর প্রেসক্লাবে দৈনিক মতলবের আলো পত্রিকার গৌরবের ১১তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত হয়েছে।
প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে বাংলাদেশ আ.লীগের ত্রাণ ও সমাজ কল্যান বিষয়ক সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী বলেন, পত্রিকা হলো গণমানুষের মুখপত্র। পত্রিকা হবে জনগণের মুখের ভাষা। এটা কোন ব্যক্তির মুখপাত্র হতে পারে না। তিনি উদাহরণসহ স্বরূপ বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সংবাদপত্রের স্বাধীনতা এনে দিয়েছেন। প্রথমে একটি মাত্র টিভি চ্যানেল চিল তা হলো বিটিভি। এক সময়ে সংবাদপত্রের স্বাধীনতা ছিল না। সেই স্বাধীনতা এনে দিয়েছেন বর্তমান সরকার। বর্তমানে একটি চ্যানেল থেকে ৩৬টি টিভি চ্যানেলে এসে দাঁড়িয়েছে। এটা সম্ভব হয়েছে একমাত্র বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদারতার কারণে। সংবাদপত্রকে আলোকিত করেছেন শেখ হাসিনা। দীর্ঘদিন ধরে সংবাদকর্মীরা আন্দোলন করেছিল সংবাদপত্রের স্বাধীনতার জন্য। এখন সেই সংবাদপত্র স্বাধীন হয়েছে। শেখ হাসিনা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলায় উদ্বোধন করেছেন কিন্তু একটি পত্রিকায় সেই সংবাদপটি ভেতরের পাতায় ছাপিয়েছিল। কিন্তু একটি অসাংগঠনিক সংবাদ সেদিন ওই পত্রিকার লিড হিসেবে প্রকাশ করেছিল। কিন্তু শেখ হাসিনা ওই পত্রিকার বিরুদ্ধে কিছুই বলেননি। স্বাধীন বাংলাদেশ সংবাদপত্রের স্বাধীনতা ফিরে এসেছে। এ সমাজকে এগিয়ে নিতে হবে। সাংবাদিকরা লেখনীর মাধ্যমে জঙ্গীবাদ, সন্ত্রাস, মাদক এদের বিরুদ্ধে আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। তিনি আরো বলেন, গতকাল চাঁদপুর হাসান আলী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে সন্ত্রাস, জঙ্গীবাদ, মাদক ও বাল্য বিয়ের যে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে সেই সমাবেশে আইজিপিকে বলেছি এসবের বিরুদ্ধে পুলিশ প্রশাসন যেন সোচ্চার ভূমিকা পালন করে। বাংলাদেশ একটি সাম্প্রদায়িক দেশ। সাংবাদিকরা অশুভ শক্তির বিরুদ্ধে তাদের লেখনির মাধ্যমে রুখে দাঁড়াতে হবে। সরকার দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে আপনারা সেই চিত্র সমাজের দর্পন হিসেবে পত্রিকায় তুলে ধরবেন। বিশ্ববাসীর কাছে বাংলাদেশ হলো একটি রুল মডেল। বাংলাদেশ হলো শান্তির দেশ। কফিআনান বলেছিলেন, শেখহাসিনা বাংলাদেশের নেত্রী নন। তিনি বিশ্বের নেত্রী। আন্তর্জাতিক জরিপে দেখা গেছে ১৭৩টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশ স্বচ্ছতা ও জবাবদিহীতার দিক থেকে ৩ নম্বর স্থান অর্জন করেছে। আন্তর্জাতিক জরিপে দেখা গেছে দুর্নীতিতে খালেদা জিয়ার স্থান ছিল ৩ নম্বরে। খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে যে রায় দিয়েছে তাতে তারা মিথ্যাচার করে যাচ্ছে। তারা রাষ্ট্র ক্ষমতায় থাকাকালীন আহছান উল্লাহ মাষ্টারকে হত্যা করেছে। কিন্তু শেখ হাসিনা হত্যা, খুনের রাজনীতিতে বিশ্বাসী নয়। আমাদের আন্দোলন হলো সত্য ও ন্যায়ের জন্য। নির্বাচনী ইসতিয়ারে ছিল নদী ভাঙনের হাত থেকে চাঁদপুর হাইমচরকে রক্ষা করা। শেখ হাসিনা সরকার সেই কাজটি করেছে। আমি চাই দৈনিক মতলবের আলো পত্রিকা যেভাবে এগিয়ে যাচ্ছে এক সময় এই পত্রিকাটি চাঁদপুরের প্রথম শ্রেণির পত্রিকায় রূপ নিবে। আর তা সম্ভব হচ্ছে মহান মুক্তিযুদ্ধের বীর সেনানী জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা এম.এ ওয়াদুদের ঐকান্তিক প্রচেষ্টার কারণে।

গতকাল বৃহস্পতিবার বেলা ১১ টায় হাইমচর প্রেসক্লাবে র‌্যালি, আলোচনা সভা ও কেক কাটার অনুষ্ঠানে দৈনিক মতলবের আলো পত্রিকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক কে এম মাসুদের সভাপতিত্বে ও পত্রিকার হাইমচর প্রতিনিধি মোঃ হোসেন গাজির পরিচালনায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, চাঁদপুর জেলা আ.লীগের সহ-সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার আব্দুর রব ভূইয়া, মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক মো. হানিফ পাটওয়ারী, শ্রম বিষয়ক সম্পাদক মো. নুরুল ইসলাম মিয়াজী, হাইমচর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার সন্তোষ চন্দ্র মজুমদার, হাইমচর প্রেসক্লাব ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মো. নুরুল ইসলাম, সাধারন সম্পাদক মো. খুরশিদ আলম, উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারন সম্পাদক মো. আতিকুর রহমান পাটওয়ারী, হাইমচর উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারন সম্পদক নজরুল ইসলাম রনি, এস এ টিভি জেলা প্রতিনিধি বিপ্লব সরকার, চাঁদপর সময়ের বার্তা সম্পাদক এস আর শাহআলম, মতলবের আলো পত্রিকার সহ-সম্পাদক মানিক দাস, সাংবাদিক আরিফুল ইসলাম।
এসময় উপস্থিত ছিলেন, প্রশাসনিক কর্মকর্তা, হাইমচর প্রেসক্লাব নেতৃবৃন্দসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ। পরে প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর কেক কাটেন প্রধান অতিথিসহ অন্যান্য অতিথিবৃন্দ। এর পূর্বে প্রেসক্লাব হতে প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর বর্নাঢ্য র‌্যালী বের করা হয়। র‌্যালিটি উপজেলার প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিন করে। র‌্যালীতে প্রধান অতিথিসহ উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহি অফিসার মো. মাসুদুর রহমান, হাইমচর কলেজ অধ্যক্ষ মোঃ মানোয়ার হোসেন মোল্লা, হাইমচর থানা এস আই মোঃ সুমন মিয়া প্রমুখ।