শহরের বেদে পল্লী এলাকায় সরকারি খাস সম্পত্তি অবৈধ ভাবে বিক্রির অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥
চাঁদপুর শহরের ৫নং কয়লা ঘাট বেপারী বাড়ি সংলগ্ন সরকারের ১নং খাস খতিয়ানভূক্ত ভূমীতে দীর্ঘদিন ধরে প্রায় ৩শ’ পরিবার নিয়ে বেদে পরিবারের লোকজন বসবাস করে আসছে। ওই এলাকার কিছু অংশ প্রভাবশালী একটি চক্র অবৈধ ভাবে অন্যত্রে বিক্রি করে নগদ অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ব্যাপারে বেদে পল্লীর লোকজন একত্রিত হয়ে মৃত নিজাম উদ্দিনের পুত্র বিশুদ আলী স্বাক্ষরিত একটি স্বারকলিপি ৫জুন মঙ্গলবার চাঁদপুর জেলা প্রশাসক বরাবর প্রদান করেন।
স্বারকলিপিতে উল্লেখ করা হয়েছে, ষ্ট্যান্ড রোডের মেঘনা ডিপুর পার্শ্বের মৃত জয়নাল মিয়ার পুত্র বাবুল মিয়া দির্ঘদিন ধরে ওই এলাকায় পল্ট্রি ফার্ম এর ব্যবসা পরিচালনা করে আসছে। বর্তমানে ফার্মগুলো পরিত্যক্ত অবস্থায় পরে আছে। তিনি সেখানে প্রভাব বিস্তার করে সরকারি সম্পত্তি গোপনে নিজের নামে বন্ধবস্ত আছে বলিয়া পার্শ্ববর্তি লোকদের কাছে ওই স্থানের ভূমী বিক্রি করছে। এমনকি বেদে পরিবারের লোকদের চলাচলের পথও বন্ধ করে দেওয়ার পায়তারা করছে বাবুল মিয়া। ক্রয়কৃত ব্যাক্তিরা ওই স্থানে যে কোন মূহুর্তে ভূমি দখল করতে গেলে বেদে পল্লীর পরিবারের লোকদের সাথে বড় ধরনের সংঘর্ষের সম্ভাবনা বিরাজ করছে।
অত্যন্ত মানবেতরভাবে জীবনযাপন করা এই বেদে সম্প্রদায়ের মানুষগুলো যাতে অন্তত নূন্যতম নাগরিক অধিকার নিয়ে এ সমাজে বসবাস করতে পারে সে জন্য এ স্থানটিতে চাঁদপুরের স্থানীয় সাংসদ ডাঃ দীপু মণি এমপি ২৭০টি বেদে পরিবারের জন্য গুচ্ছগ্রাম করার সিদ্ধান্ত নেন। সে অনুযায়ী তৎকালিন সময়ে জেলা প্রশাসক বরাবর একটি ডিও লেটারও প্রদান করা হয়। কিন্তু বর্তমানে বাবুল মিয়া এই স্থানেই (গুচ্ছগ্রাম এলাকায়) নিজের নাম ভাঙ্গিয়ে আশেপাশের লোকদের কাছে ভূমী বিক্রি করছেন। অসহায় বেদে পল্লীর লোকজন সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে বিনিত আবেদন করেন, তফছিল বর্ণিত ভূমীতে অবৈধ ভাবে যাতে বিক্রি না করতে পারে সে বিষয়ে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করার জন্য সু-দৃষ্টি কামনা করছেন।