রমজানের উদ্দেশ্য হলো তাকওয়া অর্জন

মুফতি মুহা : আবু বকর বিন ফারুক।।রমজান মাস আমাদের মাঝে আগমন করে রহমত -মাগফিরাত- নাজাত নিয়ে। মহান আল্লাহ তায়ালা রমজান মাসে অগনিত গুনাহগার বান্দাকে মাফ করে দেন।রমজানে  অঝোর ধাঁরায় রহমত নাযিল হতে থাকে। রমজানের রোযা রাখার মূল উদ্দেশ্য হলো তাকওয়ার গুন হাসিল করা। প্রতিটি মু’মিন মুসলমানের জন্য তাকওয়া সাথে নিয়ে সদা -সর্বদা জীবন পরিচালনা করা ইহাই ইসলামের শিক্ষা। আমরা মানুষ আমাদেরকে শয়তান ওয়াসওয়া দিয়ে থাকে তাই আমরা অন্যায় কাজ করে থাকি। এজন্য একটি মাস সিয়াম পালনের দ্বারা তাকওয়ার গুন হাসিল করে, তাকওয়ার শক্তি নিয়ে বছরের অন্যান্য সময় অতিবাহিত করা।
মাহে রমজান ও তাকওয়া ওতপ্রোতভাবে জড়িত। আরবি ‘তাকওয়া’ শব্দের আভিধানিক অর্থ আল্লাহভীতি, পরহেজগারি, দীনদারি, ভয় করা, বিরত থাকা, আত্মশুদ্ধি, নিজেকে কোনো বিপদ-আপদ বা অনিষ্ট থেকে রক্ষা করা প্রভৃতি। শরিয়তের পরিভাষায় আল্লাহর ভয়ে সব ধরনের অন্যায়-অত্যাচার ও পাপাচার
বর্জন করে পবিত্র কোরআন ও সুন্নাহর নির্দেশ অনুযায়ী মানবজীবন পরিচালনা করার নামই তাকওয়া।
তাকওয়া হলো ইত্তাকুল্লাহ বা আল্লাহভীতি। আল্লাহ তায়ালাকে ভয় করে যাবতীয় অন্যায় – অপরাধ কার্যক্রলাপ থেকে নিজেকে বিরত রেখে সুনাহ মোতাবেক  যথাযথভাবে জীবনকে পরিচালিত করা।
প্রতিটি কাজ -কর্মে আল্লাহ তায়ালাকে ভয় করতে হবে। আন্তরের মধ্যে এ অবস্থা করা আমাদের সকল কাজ -কর্ম মহান আল্লাহ তায়ালা দেখতেছেন। আল্লাহ তায়ালার সম্মুখে আমাদেরকে একদিন দাঁড়াতে হবে। আমাদের ভালো আমলের জন্য আল্লাহ তায়ালার দয়ায় জান্নাত আর মন্দ আমলের জন্য জাহান্নামে যেতে হবে। এ চিন্তা মনে সদা জাগ্রত করতে পারলেই তাকওয়ার গুন হাসিল।
লেখক: মুফতি মুহা: আবু বকর বিন ফারুক
mdabubakarbinfaruque@gmail.con