মৎস্য খামারকে কেন্দ্র করে বাগাদীতে অতর্কিত হামলায় পিতা-পুত্র গুরুতর আহত


স্টাফ রিপোর্টার ॥ চাঁদপুর সদর উপজেলার বাগাদী ইউনিয়নের নানুপুরে মৎস্য খামারে মাছ চাষকে কেন্দ্র করে নুর মোহাম্মদ রাজা (৭৫) ও পুত্র রেদওয়ান রাজা (৪১) প্রতিপক্ষের অতর্কিত হামলায় গুরুতর আহত হয়েছেন। বর্তমানে তারা চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। বৃহস্পতিবার (১৯ অক্টোবর) সকাল সাড়ে ৯টায় বাগাদী চৌরাস্তা মোড় এ হামলার ঘটনা ঘটে। চৌরাস্তা মোড় বাজারের ব্যবসায়ী ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, রেদওয়ান এর সাথে প্রতিপক্ষ সাদ্দাম মিয়াজী ও সুমন মিজির সাথে সকাল সাড়ে ৮টায় বাক বিতন্ডা হয়। এ সময় সাদ্দাম ও সুমন ওই স্থান থেকে চলে গেলেও পুনরায় সাড়ে ৯টায় রেদওয়ানদের চৌরাস্তা বাজার ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানে এসে সাদ্দাম, সমুন, আরিফ খান, সুমন মিজি, মানিক মিজি, শাহ পরানসহ আরো ৮/১০জন সংঘবদ্ধ হয়ে দেশীয় অস্ত্র দিয়ে নুর মোহাম্মদ রাজা ও রেদওয়ানের উপর হামলা চালায়। এ সময় তাদের মাথায় ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে রক্তাক্ত জখম হয়। উপস্থিত স্থানীয় ইউপি সদস্য ইসাহাক গাজী, জাকির হোসেন খানসহ অনেকে তাদেরকে শান্ত করার চেষ্টা করলে তাদের উপরও হামলা চালায়। পরে তারা ঘটনাস্থল ত্যাগ করে। আহতদেরকে স্থানীয় উদ্ধার করে চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করে। স্থানীয়দের সাথে আলাপ করে জানাগেছে, একই মৎস্য খামার নিয়ে পূর্বে দুই পক্ষের মধ্যে বিবাদ সৃষ্টি হয়। ওই সময় এই বিষয়ে থানায় মামলা হলেও পরবর্তীতে বিষয়টি স্থানীয় ভাবে মিমাংসা হয়। ওই ঘটনার সূত্র ধরে আবারও ক্ষিপ্ত হয়ে এই ঘটনা হয়। এছাড়াও বুধবার বিকেলে মৎস্য খামারে রেদওয়ানের সাথে প্রতিপক্ষের সাথে কথা কাটাকাটি হয়। বিষয়টি ওই সময় নানুপুর গ্রামের জাকির হোসেন খান মিটিয়ে দেন। এ ঘটনায় থানায় মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলে আহতদের পরিবার সূত্রে জানাগেছে। অপরদিকে প্রতিপক্ষ সাদ্দাম মিজি ও সুমন মিজির সাথে আলাপ করে জানাগেছে, সকালে তারা মাছ বিক্রি করে সৌরাস্তায় আসলে মাছের গাড়িতে থাকা মানিক মিজি ও রুবেল মিজিকে দেখে রেদওয়ান দেশীয় অস্ত্র দিয়ে আঘাত করতে চায়। পরে গাড়ী চালকের কারণে কোন দূর্ঘটনা হয়নি। বিবাদমান মৎস্য খামারে উভয় পক্ষকে না যাওয়ার জন্য পূর্বের ঘটনার পর মিমাংসা হয়।