মেঘনায় ইলিশ নেই আছে ডুবচর!

মিজান লিটনঃ-

চাঁদপুর: চাঁদপুরের মেঘনা নদীতে ইলিশ নেই! ভরা মৌসুমেও জেলেদের জালে ধরা পড়ছে না রুপালী ইলিশ। মেঘনায় ইলিশ না থাকার প্রধান কারণ হিসেবে নদীর বুকে জেগে ওঠা ডুবচরকে দায়ী করছে জেলে ও ইলিশ বিশেজ্ঞরা।

imagesইলিশ স্বভাবজাত ভাবে পরিভ্রমণ প্রিয় মাছ। পরিভ্রমণ করতে গিয়ে দেশের দক্ষিণাঞ্চল তথা নিন্ম এলাকা থেকে ডুবচরের কারণে আর উপরে উঠে আসতে পারে না। এছাড়া ওই এলাকার নদী একটু সংকীর্ণ বিধায় মাছ জেলেদের জালে আটকা পড়ে যায়। আর তাই ধীরে ধীরে চাঁদপুরের মেঘনা ইলিশ শূণ্য হচ্ছে বলে এমনই আশঙ্কার কথা জানালেন গবেষকরা।

চাঁদপুর মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের ইলিশ গবেষক ড. আনিসুর রহমান চাঁদপুর নিউজকে জানান, ভরা মৌসুমে মেঘনা নদীতে কম পরিমাণ ইলিশ পাওয়া যাচ্ছে। তা অবশ্যই চিন্তার বিষয়। দেশের সব চাইতে বড় অভয়াশ্রম এলাকা ষাটনল থেকে চর আলেকজেন্ডার এলাকার অনেক জায়গায় ডুবচর ও নাব্যতা সংকট দেখা দিয়েছে। ইলিশের স্বভাবজাত চলচলে বাধাগ্রস্ত হচ্ছে বিধায় ইলিশ মেঘনায় উঠে আসতে পারছে না।

গত বছরের তুলনায় চাঁদপুর মাছঘাটে এ বছর ইলিশ মাছ সরবরাহ অনেক বৃদ্ধি পেয়েছে। যদিও মাছগুলো চাঁদপুরের মেঘনা নদীর ইলিশ নয়। এ মাছগুলো ভোলা, চরফেশন, বরিশাল তথা দক্ষিণাঞ্চলের পদ্মা নদী ও সাগরের।

বৃহস্পতিবার বিকেলে জেলেদের সঙ্গে মেঘনা নদীতে গিয়ে দেখা যায় জালে ইলিশ ধরা পড়ছে না। যা ধারা পড়ছে তা এ ভরা মৌসুমে অতিনগণ্য।

জেলে মোবারক হোসেন, মানিক মিয়া, ও রাসেল মাঝি বাংলানিউজকে জানান, মেঘনা নদীর দক্ষিণ দিকে নামা এলাকার (ভোলা, নোয়াখালী, বরিশাল) মোহনা যে হারে জাল দিয়ে মাছ ধার খায়, সেখান থেকে মাছ আর উপরের দিকে উঠে আসতে পারে না।

জাতীয় মৎস্যজীবি সামিতির সাধারণ সম্পাদক তছলিম বেপারী চাঁদপুর নিউজকে জানান, প্রাকৃতিক ও মনুষ্য সৃষ্ট বিভিন্ন সমস্যার দরুণ চাঁদপুরের মেঘনা নদী দিন দিন ইলিশ শূণ্য হয়ে পড়ছে। এভাবে চলতে থাকলে ইতিহাসের অংশ হয়ে যাবে চাঁদপুর মেঘনা রুপালী ইলিশ। অতিশিগগিরই মেঘনা নদী ড্রেজিং করে নাব্যতা ফিরিয়ে আনার দাবি জানান এ জেলে নেতা।

চাঁদপুরের জেলা মৎস্য কর্মকর্তা রতন দত্ত চাঁদপুর নিউজকে জানান, নদীর নাব্যতা ফিরিয়ে আনতে ঊর্ধ্বতন কর্তপক্ষ এমনকি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকেও অবহিত করা হয়েছে। বাজেট পেলে নদী ড্রেজিংয়ের ব্যবস্থা করা হবে।

দেশ ছাড়িয়ে বিদেশেও চাঁদপুরের মেঘনার ইলিশের বেশ সুনাম রয়েছে। রয়েছে বেশ কদরও। অথচ প্রাকৃতিক কারণসহ নদী দূষণ, কারেন্ট জালের অবাদ ব্যবহার, আর জাটকা নিধনের কারণে মেঘনা নদী প্রায় ইলিশ শূণ্য হয়ে পড়েছে। এমতাবস্থায় জরুরি ভিত্তিতে সরকারের পক্ষ থেকে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানিয়েছেন চাঁদপুরবাসী।