বাবুরহাটে মোবাইল ব্যাংকিং এজেন্ট মা কম্পিউটারে দুর্ধর্ষ চুরি

2_8683

নিজস্ব প্রতিনিধি-
চাঁদপুর পৌরসভার ১৪নং ওয়ার্ডস্থ বাবুরহাট বাজারের মা কম্পিউটার ডিজিটাল ষ্টুডিও ফটোকপি এন্ড মোবাইল ব্যাংকিং বিকাশ, ডাচ বাংলা ও ইসলামী ব্যাংক এম ক্যাশ এজেন্ট। পাশের দোকানের কাড় দিয়ে উঠে সিলিং কেটে দুর্ধর্ষ চুরি ঘটনা ঘটেছে। এতে চোরের দল দু’টি মোবাইলসহ নগদ টাকা নিয়ে যায়। সরজমিনে দেখা যায়, মা কম্পিউটারের স্বত্ত্বাধিকারী নুর হাছান খান মিসু জানান, প্রতিদিনের মত গত বুধবার রাত ১২টায় দোকান বন্ধ করে বাসায় চলে যায়। যথানিয়মে সকাল সাড়ে ৮টা এসে দোকান খুলে দেখে দোকানের ভিতরের আসবাবপত্র এলোমেলোভাবে পরে আছে। খোঁজাখুজি করে দেখে দোকানের ক্যাশের তালা ভাঙা অবস্থায় নিচে পড়ে আছে। আশপাশের ব্যবসায়ীরা ছুটে এসে আলামত দেখতে থাকে। চোরের দল কিভাবে কৌশলে দোকানে ডুকেছে তার দেখার জন্য সকলে ভিড় করে।
গত বৃহস্পতিবার সকালে দোকান খুলে দোকানে চুরির বিষয়টি নিশ্চিত হয়। পরে ঘটনার কথা বাজার পরিচালনা কমিটিকে অবহিত করলে বাজার ব্যবস্থপনা কমিটির সভাপতিসহ সকলে ঘটনাস্থলে ছুটে আসে। এসে তারা প্রতিষ্ঠানের স্বত্ত্বাধিকারীকে শান্ত¦না দিতে থাকে। এ সময় সাংবাদিকদেরকে দেখে বাজারের সকল ব্যবসায়ী নাইটগার্ড কোথায় ছিল বলতে থাকে, এজন্য বাজারের নাইটগার্ডকে তারা দায়ী করে।
জানা যায়, গতকাল বাবুরহাট বাজারে ৯জন নাইটগার্ড থাকার কথা থাকলেও ৬জন ডিউটি করেছে বলে জানা যায়। এখন প্রশ্ন হচ্ছে বাবুরহাট বাজারে এত নাইটগার্ড থাকা সত্ত্বেও কিভাবে একের পর এক চুরির ঘটনা ঘটছে। নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক একজন কমিটির সদস্য জানান, নাইটগার্ড নিয়ে সবসময় আমি প্রতিবাদ করলেও তারা ঠিক মত ডিউটি না করে মাস শেষে বেতন নিচ্ছে। তারা অন্যন্য কমিটির সদস্যকে ম্যানেজ করে। কমিটির সদস্য আরো বলেন, বাবুরহাট বাজার ব্যবস্থাপনা কমিটির মেয়াদ শেষ হয়েছে বহুদিন আগে, তাই বাজার ব্যবস্থাপনা কমিটি দুর্বল হয়ে গেছে। বাজারের একাধিক ব্যবসায়ী জানান, বাজারে দিন দিন চুরি বৃদ্ধি পাচ্ছে, অথচ কমিটির লোকজন এ ব্যাপারে নিরব ভূমিকা পালন করছে। এ পর্যন্ত একটি চুরির সমাধান হয়নি বলে তারা জানান। অথচ প্রতিটি চুরির ব্যপারে চাঁদপুর মডেল থানায় সাধারন ডায়েরী করা আছে। বাবুরহাট বাজারে চুরির ঘটনা অব্যাহত রয়েছে, আর এ জন্য বাজারের সকল ব্যবসায়ী সীমাহীন আতঙ্কিত রয়েছে। চুরির ঘটনাটি গতকাল সকালে চাঁদপুর মডেল থানাকে জানালে চাঁদপুর মডেল থানার এসআই মোস্তফা সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে আসে। ঘটনার সত্যতা শিকার করে আলামতগুলো দেখতে থাকে। চুরির ঘটনায় চাঁদপুর মডেল থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে বলে দোকানের স্বত্ত্বাধিকারী জানান। বাবুরহাট বাজারে চুরির ঘটনা বৃদ্ধি পাওয়া বর্তমানে সকল ব্যবসায়ী নিজেদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান নিয়ে আতঙ্কিত রয়েছে। তাই তারা বাজারে চুরির ঘটনা যেন আর না ঘটে সে জন্য প্রশাসনের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।