ফরিদগঞ্জ পশ্চিম গুপ্টি আদলে নির্মিত বসত বাড়িতে আপত্তিকর ভাবে চলাফেরায় বাঁধা দেওয়ায় সন্ত্রাসী হামলা, থানায় মামলা

শিমুল হাছান, ফরিদগঞ্জ : চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জ উপজেলায় পার্ক আদলে তৈরি বসত বাড়িতে আপত্তিকর ভাবে চলাফেরা অতঃপর বাঁধা দেওয়ায় সন্ত্রাসী হামলা, আহত হয়েছে ৫ জন।

সরজমিন ও থানায় মামলার আলোকে দেখা যায়, উপজেলার গুপ্টি পশ্চিম ইউনিয়নের ষোলদানা গ্রামের কৃতি সন্তান নিটল টাটা গ্রুপের পরিচালক (প্রশাসন) মোঃ ইসামইল হোসেন নিজের উপার্জনকৃত অর্থায়নে পার্কের আদলে বাড়িটি নির্মাণ করেন, গ্রামের কোমলমতি ছাত্র – ছাত্রী ও সাধারন জনগনের বিনদনের জন্য বাড়ির গেইট উন্মুক্ত করে দেন, সকাল থেকে বিকালে পর্যন্ত দৃষ্টি নন্দন পার্কের আদলে বাড়িটি দেখার জন্য ছুটে আসেন একা অথবা স্ব-পরিবারে। এ বাড়ির গেটের ভিতর দিয়েই পার্শ্ববর্তী বাড়ির সাধারন জনগনের যাতায়াতের একমাত্র রাস্তা যাহা জনস্বার্থে রাস্তা বন্ধ করা হয়নি। বাড়ির মালিক মোঃ ইসমাইল হোসেন সখের বসে বাড়িটি নির্মাণ করলেও তিনি স্ব পরিবারে ঢাকাতেই বসবাস করেন, বাড়িটি দেখ বালের দায়িত্বে রয়েছে একই এলাকার আঃ রশিদ, যিনি বাড়িটি দেখাশুনার পাশাপাশি বাড়িটি দেখতে আশা সাধারন জনগনের সেবা দিয়ে আসছেন, আঃ রশিদ স্ব – পরিবারেই বসবাস করেন এখানে। গত ৪ঠা এপ্রিল বিকালে একই ইউনিয়ের হামছাপুর গ্রামের মোস্তফা পাটওয়ারীর ছেলে  ফয়েল (২৫), ষোলদানা গ্রামের আঃ মতিনের ছেলে জুলফিকার (২৭), হামছাপুর গ্রামের শরীফ হোসেন(২৬), খাজুরিয়া গ্রামের রশিদ ওরফে কালা(২৩),হামছাপুর গ্রামের রাজু(২১),মামুন (২৩) সহ ১০ – ১৫ জন সংঘবদ্ধ লোক বাড়ির ভিতরে আপত্তি কর অবস্হায় চলাফেরা ও আঃ রশিদের মেয়ে রুমা আক্তার (১৮) অশালীন ভাষায় কথা বললে আঃ রশিদ তার প্রতিবাদ করায় তারা ক্ষিপ্ত হন এবং তার মেয়েকে শ্লীলতাহানি করে ও আঃ রশিদ সহ তার মেয়ের উপর শারীরিক নির্যাতন ও বেদম প্রহার করে, তাদের ডাক চিৎকারে এলাকাবাসী তাদেকে উদ্ধার করেন, তারা  রুমা আক্তারের গলায় থাকা স্বর্নের চেইন, ২ টি স্যামসাং মোবাইল, আঃ রশিদের পকেটে থাকা নগদ ১৭২০০ টাকা নিয়ে যায় এবং বাড়িতে ব্যাপক ভাংচুর চালিয়ে ৭০ হাজার টাকার ক্ষতি সাধন করে, আঃ রশিদের মেয়েকে এসিড নিক্ষেপ সহ তাদেরকে প্রান নাশের হুমকিও প্রদান করে, পরে আঃ রশিদ বাধী হয়ে আসামীদের বিরুদ্ধে ফরিদগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করে, মামলা নং – ১১/৯৩, তারিখঃ ০৭ – ০৪ – ২০১৮।
এমতাবস্হায়, ভুক্তভোগীদের প্রানের দাবী উক্ত সন্ত্রাসীদের কে আইনে আওতায় এনে শাস্তি প্রদান সহ উক্ত পরিবারের জান ও মালের নিরাপত্তা দিতে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছে ভুক্তভোগী পরিবার।