পুত্র বধুকে দিয়ে অন্যকে ফাঁসাতে গিয়ে ফেঁসে গেলেন শ্বাশুড়ী কচুয়ায় মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানির অভিযোগ

8604_2
কচুয়া প্রতিনিধি-
কচুয়ায় পুত্রবধুকে পুঁজি করে সম্পত্তি দখলের লোভে অন্যকে মিথ্যা মামলা দিয়ে ফাঁসাতে গিয়ে ফেঁসে গেলেন এক শ্বাশুড়ী। গতকাল শুক্রবার দুপুরে উপজেলার ডুমুরিয়া গ্রামে চাঞ্চল্যকর এ তথ্য বেড়িয়ে আসে।
সরেজমিনে জানা গেছে, কচুয়ার ডুমুরিয়া গ্রামের সূত্রধর বাড়ির মৃত নগেন্দ্র চন্দ্র সূত্র ধরের স্ত্রী তরুবালা সূত্রধর তার পুত্রবধু শিখারানী সূত্রধর (২৫)-কে একই বাড়ির রতন চন্দ্র সূত্রধর, সুমন ও যুবরাজ চন্দ্র সূত্রধর অপহরণ করে নিয়ে গেছে এমন অভিযোগ এনে বুধবার চাঁদপুরের বিজ্ঞ আদালতে একটি অপহরণ মামলা দায়ের করে।
এদিকে গতকাল শুক্রবার মামলার প্রথম আসামী রতনের পিতা নিরিহ সুভাস চন্দ্র সূত্রধর অপহরণের শিকার খোকন চন্দ্র সূত্রধরের স্ত্রী শিখা রানীকে বাড়ি দেখতে পেয়ে কচুয়া একটি অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগের প্রেক্ষিতে কচুয়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মোঃ জহিরুল ইসলাম ঘটনাস্থলে এসে শিখা রানী সূত্রধরকে তার ঘরে স্বামীর সাথে দেখতে পায়। পরে স্থানীয় এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গদের উপস্থিতিতে তাকে জিজ্ঞাসা করলে সে অপহরণ হয়নি এবং মামলার ব্যাপারে কিছুই জানেনা বলে জানায়। এসময় পুলিশ খোকনের স্ত্রী শিখা রানীকে এলাকার বেশ কিছু গণ্যমান্য ব্যক্তির উপস্থিতিতে তার স্বামী খোকনের জিম্মায় রাখে।
অপরদিকে পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে মামলার বাদী তরুবালা, স্বাক্ষী রবীন্দ্র চন্দ্র সূত্রধর, মিরা রানী সূত্রধর, হাবিবুর রহমান ও প্রদীপ চন্দ্র সূত্রধর পালিয়ে যায়। স্থানীয়রা জানিয়েছে, নিরিহ রতন, সুমন ও যুবরাজকে ফাঁসাতে মিথ্যা ঘটনা সাজিয়ে তাদের সম্পত্তি দখলের জন্য এবং হিন্দু-মুসলমানদের সাথে বিভেদ সৃষ্টির লক্ষে বহু অপকর্মের হোতা ডুমুরিয়া গ্রামের জনৈক হাবিবুর রহমান ও রবীন্দ্র চন্দ্র সূত্রধর বাদীকে ভুল বুঝিয়ে এ মামলাটি দায়ের করে।