দুর্গা পূজার অষ্টমী-নবমী ও দশমী দিনে বিকেল থেকে রাত পর্যন্ত শহরে ট্রাক-ট্রাক্টর চলাচল বন্ধ রাখা হবে

10_8770
চাঁদপুর নিউজ প্রতিনিধি-

চাঁদপুর জেলা পূজা উদ্যাপন কমিটির সাথে জেলা প্রশাসক মোঃ ইসমাইল হোসেন প্রস্তুতি সভায় মিলিত হয়েছেন। গতকাল ৭ অক্টোবর সোমবার সকাল সাড়ে ১০টায় জেলা প্রশাসকের সম্মেলণকক্ষে ঐ সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সভাপতির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক মোঃ ইসমাইল হোসেন বলেন, শারদীয় দুর্গা পূজার অষ্টমী, নবমী ও দশমী দিনে বিকেল সাড়ে ৪টা থেকে রাত ১২ পর্যন্ত সকল প্রকার ট্রাক ও ট্রাক্টরসহ সকল প্রকার ভারী যানবাহন শহরের ভেতরে চলাচল বন্ধ রাখা হবে। এতে করে চাঁদপুর শহর সম্পূর্ণভাবে যানজট মুক্ত থাকবে। তাহলে দূরদূরান্তের দর্শনার্থীরা মুক্ত মনে শহরের পূজা ম-পগুলো পরিদর্শন করতে পারবে। এ বছর পূজা ও ঈদ উপলক্ষে বিদ্যুতের লোডশেডিং হবে না বলে তিনি জানান। বিভিন্ন উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেয়া হয়, তারা প্রতিটি পূজা ম-প যেনো পর্যবেক্ষণ করা হয়। তাহলে আয়োজকরা বলতে পারবে প্রশাসনিক কর্মকর্তারা পরিদর্শন করে থাকে। তাহলে কু-চক্রিরা ম-পগুলোকে অপকর্ম ঘটাতে পারবে না। যদি প্রশাসনিক চাপ থেকে থাকে তাহলে রাত ১২টায় হলেও ম-প পরিদর্শনে যেতে হবে। যে উপজেলায় অধিক পূূজা ম-প রয়েছে সেগুলোতে অন্তত ১বার যেতে হবে। বিদ্যুতের সমস্যা না থাকলে বিদ্যুতের লোডশেডিং হবে না। তারপরও নিজেদেরকে বিকল্প বিদ্যুতের ব্যবস্থা রাখতে হবে। প্রতিটি পূজা ম-পের সম্মুখভাবে পর্যাপ্ত আলোকসজ্জা করা হয়। কিন্তু মন্দিরের পেছনে যদি আলোর ব্যবস্থা রাখা হয় তাহলে কু-চক্রিরা পূজায় কোন বিঘœ সৃষ্টি করতে পারবে না। কথায় আছে আলোকে নাকি শয়তান ভয় পায়, তাই কু-চক্রিরা পূজা ম-পের পেছনে আলো থাকলে কোন অপকর্ম করতে পারবে না। জেলার কচুয়া উপজেলায় ৩৯টি পূজা ম-পের মধ্যে ১১টি পূজা ম-প ঝুঁকিপূর্ণ একইভাবে ফরিদগঞ্জ উপজেলায় ২টি পূজা ম-প বর্ডার এলাকায় হওয়ায় ঝুঁকিপূর্ণের আশঙ্কা রয়েছে। এগুলোতে আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সদস্যরা সর্বদা দৃষ্টি রাখছে।
তিনি আরো বলেন, প্রতিটি পূজা ম-পে পুলিশ ও আনসার সদস্য না দেয়া পর্যন্ত নিজস্ব বলান্টিয়ার দ্বারা দৃষ্টি রাখতে হবে। এ বছর ১৮৩টি পূজা ম-পের জন্য সরকার ৮০ মেট্রিকটন চাল বরাদ্দ দিয়েছে। এ চাল প্রতিটি ম-পে সমানভাবে বন্টন করা হবে। এ সময় বক্তব্য রাখেন, জেলা পূজা উদ্যাপন কমিটির সাবেক সভাপতি জীবন কানাই চক্রবর্তী, সাবেক সাধারণ সম্পাদক সুভাষ চন্দ্র রায়, বর্তমান কমিটির আহ্বায়ক অধ্যাপক রঞ্জিত কুমার বণিক, জেলা ন্যাপ সভাপতি আবুল কালাম পাটওয়ারী, চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি শাহ্ মোঃ মাকসুদুল আলম, চাঁদপুর সদর উপজেলা পূজা উদ্যাপন কমিটির সভাপতি সুশিল সাহা, সন্তোষ দাস, কচুয়া পূজা উদ্যাপন কমিটির সভাপতি সন্তোষ চন্দ্র সেন, সাধারণ সম্পাদক ফনী ভুষণ তাফু, ফরিদগঞ্জ উপজেলা পূজা উদ্যাপন কমিটির সভাপতি হিতেষ শর্মা, হাইমচর উপজেলা পূজা উদ্যাপন কমিটির সভাপতি বিবেক লাল মজুমদার, মতলব উত্তর উপজেলা পূজা উদ্যাপন কমিটির সাধারণ সম্পাদক শ্যামল চন্দ্র দাস, চাঁদপুর জেলা জন্মাষ্টমী উদ্যাপন কমিটির সাধারণ সম্পাদক গোপাল সাহা, অ্যাডঃ রঞ্জিত রায় চৌধুরী প্রমুখ।
অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোঃ নুরুল্লা নূরী। এ সময় উপস্থিত ছিলেন চাঁদপুর সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাহীনুর শাহীন খান, ফরিদগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ সাহেদুল ইসলাম, মতলব উত্তর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা একেএম মনিরুজ্জামান, শাহরাস্তি উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ মোয়াজ্জেম হোসাইন, চাঁদপুর এনএসআই সহকারী পরিচালক সুমন বিশ্বাস, কোস্ট গার্ড স্টেশন কমান্ডার লেঃ মোঃ মাহফুজুল ইসলাম, আনসার ভিডিপি জেলা কমান্ড্যান্ট আফজাল হোসেনসহ বিভিন্ন উপজেলার পূজা উদ্যাপন কমিটির কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।