কচুয়ায় প্রেমিক যুগলের লঙ্কা কান্ড!

কচুয়া উপজেলার প্রেমিক যুগল হেলাল (১৯) ও রুমি (১৪) এক লঙ্কা কান্ড ঘটিয়েছে। জানা যায়, কচুয়া উপজেলার নূরপুর গ্রামের আবু মিয়ার পুত্র হেলাল ও পার্শ্ববর্তী বরুড়া উপজেলার ভাতেশ্বর গ্রামের মোস্তফার কন্যা ৮ম শ্রেণি পড়ুয়া রুমির মধ্যে দীর্ঘদিন থেকে প্রেম সম্পর্ক চলে আসছিল। গত ৭ আগস্ট সোমবার রাতের কোন এক সময়ে হেলাল ও রুমি পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী বাড়ি থেকে পালিয়ে যায়। পরের দিন মঙ্গলবার প্রেমিক যুগলের সন্ধান পেয়ে তাদেরকে হেলালের বাড়িতে ডেকে আনা হয় এবং ওইদিন সন্ধ্যায় তাদের উধাও হয়ে যাওয়া নিয়ে গ্রামবাসীরা বৈঠকে বসে। বৈঠকে হেলাল ও রুমি একে অপরকে ভালোবাসে বলে জানায়। তারা বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হতে দৃঢ় প্রতিজ্ঞ। তাদের কথা শোনার পর দীর্ঘ সময় আলাপ আলোচনা শেষে ছেলে ও মেয়ে অপ্রাপ্ত বয়ষ্ক হওয়ায় বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ করানো সম্ভব নয় এমনি প্রেক্ষিতে মেয়ে ও ছেলেকে তাদের স্ব স্ব পিতা ও মাতার নিকট বুঝিয়ে দেয়ার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে গ্রামবাসী। ওই সিদ্ধান্ত কার্যকর করার প্রস্তুতি গ্রহণকালে আকস্মিক বিদ্যুৎ চলে গিয়ে অন্ধকার নেমে আসে। অন্ধকার নেমে আসার সুযোগে হেলাল ও রুমি সকলের চোখকে ফাঁকি দিয়ে গা ঢাকা দিয়ে লঙ্কা কা- ঘটায়। তাদের গা ঢাকা দেয়ার সংবাদ মুহূর্তের মধ্যে এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে সকলে দারুণভাবে বিস্মিত হয়। পরে পুরো গ্রামে প্রেমিক যুগলকে খোঁজাখুঁজি করেও তাদের হদিস মেলেনি।

এদিকে বৈঠকে উপস্থিত লোকজন তাদের আত্মগোপনের সংবাদটিকে রসিকতার ছলে বলাবলি করতে শুরু করে যে ‘একেই বলে প্রেমের টান। আবার কেউ বলে-সাবাশ প্রেমিক যুগল হেলাল ও রুমি।