কচুয়ার তেতৈয়া-উজানী সড়কের বেহাল দশা

ujaniকচুয়া: কচুয়া উপজেলার ৬নং উত্তর ইউনিয়নের তেতৈয়া ইউনিয়ন পরিষদ হতে উজানী বাজার পর্যন্ত প্রায় ৪ কিলোমিটার রাস্তা বেহাল দশায় পরিণত হয়েছে। রাস্তাটি দিয়ে যাতায়াত করলে মনে হয় না এটি কোন সড়ক কিংবা কোন এলাকার রাস্তা। দীর্ঘদিন সংস্কার ও মেরামতের অভাবে বর্তমানে রাস্তাটি ভেঙ্গে চলাচলের একেবারে অনুপযোগী হয়ে পড়েছে।
সরজমিনে জানা গেছে, তৎকালীণ ১৯৯৬ সালে কচুয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক কাজী তাজুল ইসলাম বিএসসির আন্তরিক প্রচেষ্টায় ড. মহীউদ্দীন খান আলমগীর তেতৈয়া- উজানী বাজার পর্যন্ত রাস্তাটি পাঁকাকরণ করেন। রাস্তাটি দিয়ে তেতৈয়া উচ্চ বিদ্যালয়, তেতৈয়া মাদ্রাসা, উজানী উচ্চ বিদ্যালয়, কচুয়া বঙ্গবন্ধু ডিগ্রি কলেজগামী ছাত্র-ছাত্রীসহ প্রতিদিন এক এলাকা অন্য এলাকার হাজার হাজার লোকজন যাতায়াত করে থাকে। এছাড়া তেতৈয়া গ্রামে ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয় হওয়ায় প্রতিনিয়ত পূর্বাঞ্চলের ৮-৯টি গ্রামের সকল শ্রেণী পেশার মানুষ একমাত্র রাস্তা হিসেবে যাতায়াত করে থাকে। বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর ইউনিয়নবাসীর দাবির প্রেক্ষিতে সদ্য প্রয়াত ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান কাজী আরিফুল ইসলাম কাজল রাস্তাটি পুনঃসংস্কারের চেষ্টা করেন। কিন্তু বিভিন্ন জটিলতার কারণে দীর্ঘদিন এরাস্তাটি সংস্কার কিংবা স্থায়ীভাবে মেরামত করা হয়নি।
এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, তেতৈয়া-উজানী সড়কটি দীর্ঘদিন সংস্কার না হওয়ায় বিগত দিনে অনেকে এ রাস্তা দিয়ে যাতায়াতকালে ছোট বড় দুর্ঘটনার কবলে পরেছে। বিশেষ করে বর্ষার সময় একটু বৃষ্টি আসতে না আসতেই রাস্তাটি দিয়ে গাড়িতে চলাচল তো দূরের কথা পায়ে হেঁটে চলাই দুরহ হয়ে পড়ে। তারা ক্ষোভ প্রকাশ করে আরো জানান, বর্তমান সরকারের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ড. মহীউদ্দীন খান আলমগীর কচুয়াকে উন্নয়নের জোয়ারে ভাসালেও অবহেলিত এ এলাকার একমাত্র রাস্তাটি সংস্কারের কোন উদ্যোগ নেননি। এদিকে রাস্তাটি দ্রুত সংস্কার করতে এলাকাবাসী স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ড. মহীউদ্দীন খান আলমগীর এমপি ও সংশ্লিষ্ট্য কর্তৃপক্ষের সু-দৃষ্টি কামনা করেছেন।