আন্দোলন করেই নেত্রীকে মুক্ত করা হবে–চাঁদপুর জেলা বিএনপি

বিএনপি চেয়ারপার্সন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসা এবং নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে চাঁদপুর জেলা বিএনপি আয়োজিত বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। কেন্দ্র ঘোষিত এ প্রতিবাদ কর্মসূচি গতকাল ৫ জুলাই বৃহস্পতিবার বিকাল ৫ টায় দলীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশে সভাপ্রধানের বক্তব্য রাখেন জেলা বিএনপির যুগ্ম-আহবায়ক মাহবুব আনোয়ার বাবলু। জেলা বিএনপির যুগ্ম-আহবায়ক ও চাঁদপুর পৌর বিএনপির সভাপতি আকতার মাঝির সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন,জেলা বিএনপির যুগ্ম-আহবায়ক মুনির চৌধুরী,পৌর বিএনপির সাধারন সম্পাদক অ্যাড.হারুনুর রশিদ,জেলা বিএনপির সাবেক যুগ্ম-সম্পাদক অ্যাড.জহির উদ্দিন বাবর,সদর উপজেলা বিএনপির সাধারন সম্পাদক অ্যাড.শামসুল ইসলাম মন্টু।
আরো বক্তব্য রাখেন, জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের আহবায়ক অ্যাড.জাহাঙ্গির হোসেন খান,সদস্য সচিব হযরত আলী ঢালী,জেলা শ্রমিক দলের সভাপতি নজরুল ইসলাম বাদল,জেলা যুবদলের সভাপতি মোফাজ্জল হোসেন চান্দু,জেলা কৃষক দলের সভাপতি এনায়েত উল্লাহ খোকন ও জেলা ছাত্রদলের সভাপতি ঈমান হোসেন গাজী। উপস্থিত ছিলেন,জেলা বিএনপির যুগ্ম-আহবায়ক ফেরদৌস আলম বাবু,সদর উপজেলা বিএনপির সি.সহ-সভাপতি অ্যাড.জাকির হোসেন ফয়সাল,যুগ্ম-সম্পাদক মোহাম্মদ আলী খান,বিএনপি নেতা আলী আহম্মদ সরকার,পৌর বিএনপির যুগ্ম-সাধারন সম্পাদক কাদির বেপারী,কোষাধ্যক্ষ কাইয়ুম খান,ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক ইমান মিয়াজী, জেলা শ্রমিক দলের সাধারন সম্পাদক হাবিব ভূঞা,জেলা যুবদলের সাধারন সম্পাদক নুরুল আমিন খান আকাশ,সি.সহ-সভাপতি মানিকুর রহমান মানিক,সাংগঠনিক সম্পাদক ফয়সাল গাজী বাহার, সদর উপজেলা যুব দলের সাধারন সম্পাদক আকতার হোসেন সাগর,জেলা যুবদল নেতা সরোয়ার গাজী,নজরুল ইসলাম নজু,জিয়া মঞ্চের কলিম,জেলা ছাত্র দলের সাবেক সি.যুগ্ম আহবায়ক মাসুদ মাঝি,উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের আহবায়ক সলেমান ঢালী,সদস্য সচিব খোকন মিজি,পৌর স্বেচ্ছাসেবক দলের সদস্য সচিব ইখতিয়ার উদ্দিন শিশুসহ বিএনপি,যুবদল,ছাত্রদল,স্বেচ্ছাসেবক দল,শ্রমিক দল,কৃষক দল ও মহিলা দলের বিভিন্ন পর্যায়ের আরো অনেক নেতা-কর্মি।
নেতৃবৃন্দ তাদের বক্তব্যে বলেন, প্রায় পাঁচ মাস পূর্ন হতে চলেছে তিনবারের সফল সাবেক প্রধানমন্ত্রী, স্বাধীনতার ঘোষক ও মুক্তিযুদ্ধের সেক্টর কমান্ডের স্ত্রী এবং বাংলাদেশের বৃহত্তম একটি রাজনৈতিক দল বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়াকে মিথ্যা মামলায় সাজা দিয়ে সরকার স্যাঁত স্যাঁতে কারাগারে অন্তরিণ রেখেছে। বেগম খালেদা জিয়ার মামলা নিয়ে সরকার গভীর ষড়যন্ত্র করছে। উদেশ্য ৫ জানুয়ারির মতো বিনা ভোটের আরেকটি নির্বাচন করে জোর দবর দস্তিতে ক্ষমতা থাকা। আজকে আমাদের নেত্রী যিনি গনতন্ত্রের মা, আপোসহীন নেত্রী তাঁর জীবন সংকটাপন্ন। সুচিকিৎসার ব্যবস্থা করা হচ্ছেনা। আমরা দৃঢ়তার সাথে বলতে চাই,সে দিন বেশি দূরে নয়,ক্ষোভের মিছিল বন্যার পানির ন্যায় বিপদসীমা অতিক্রম করলে আন্দোলন করেই আমাদের নেত্রীকে ইনশাল্লাহ মুক্ত করা হবে।
জেলা বিএনপির কর্মসূচিতে পুলিশের বাধা দেয়ার ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়ে নেতৃবৃন্দ আরো বলেন,সরকার পুলিশ বাহিনী দিয়ে আমাদের গনতান্ত্রিক অধিকারকে হরন করার জন্য পুলিশের আচরন দেখে মনে হয়,তারা পাকিস্তানি স্বৈরচারী আচরন করছে।যা কোন গনতান্ত্রিক দেশের জন্য শুভনিয় নয়। এদেশে গনতন্ত্রের বিজয় হবে। আমাদের নেত্রী মুক্তি পাবে, সুষ্ঠু নিরপেক্ষ নির্বাচন হবে এবং জনগনের রায়ে বিএনপি রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা আসবে । সমাবেশে অবিলম্বে বেগম জিয়ার সুচিকিৎসা ও নিঃশর্ত মুক্তির জোর দাবি জানান জেলা বিএনপির নেতৃবৃন্দ।
উল্লেখ্য, এ দিন জেলা বিএনপির প্রতিবাদ কর্মসূচিতে যোগদিতে জেলা ছাত্রদল ও যুবদল পৃথক মিছিল নিয়ে জেলা বিএনপির কার্যালয়ের দিকে আসতে ছিলো । বিকাল ৪টা ২০ মিনিটের সময় সেখানে অবস্থান নেয়া পুলিশ ধাওয়া করে মিছিলকারীদের ছত্রভঙ্গ করে দেন। পুলিশী তাড়া পেয়েও নেতা-কর্মিরা পরে বিচ্ছিন্ন এবং বিক্ষিপ্ত ভাবে দলীয় কার্যালয়ে উপস্থিত হতে দেখা যায়।পুলিশ এ দিন নেতা-কর্মিদের দলীয় কার্যালয়ের বাহিরে রাস্তায় দাঁড়াতে দেয়নি।